প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :           জীবনের অংশীদারের সাথে আপনার সম্পর্ক অবশ্যই সব ধরণের ধাপ, কষ্ট এবং এমনকি বিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়। আপনার এবং আপনার সঙ্গীর মধ্যে সবকিছু কোনদিনই মিল খাবে না। যদিও আমরা পরচর্চা ভালোবাসি, তবে বন্ধুদের সবসময় আপনার সম্পর্কের ওঠা নামা সম্পর্কে বলা উচিৎ নয়।

 

 

 

 

 

 

কিছু মানুষ তাদের সম্পর্ক সম্পর্কে গর্ব অনুভব করে, আবার কিছু মানুষ তাদের সম্পর্কের সমস্যাগুলি পরিচালনা করতে পারে না এবং তারা বন্ধুদের মধ্যে তা শেয়ার করে নেয়, বেশীরভাগই সবচেয়ে ভালো বন্ধুদের সাথে। আপনার ক্ষেত্রে এটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করা মনকে হালকা করতে পারে, কিন্তু কিছু জিনিস আছে যা শুধুমাত্র আপনাদের দুজনের মধ্যে থাকা উচিৎ।

 

 

 

 

 

 

চলুন শুরু করা যাক কিছু জিনিস যা আপনার বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার না করা উচিৎ।

(নিবন্ধে ব্যবহৃত চিত্র শুধুমাত্র দৃষ্টান্তের উদ্দেশ্যে)

 

 

 

 

 

১. মারামারি

দম্পতিরা যুদ্ধ করে, এটা কোন বড় ব্যাপার না। কয়েকদিনের মধ্যেই আপনারা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবেন। আপনার বন্ধুকে আপনাদের সম্পর্কের কথা বলা ঠিক আছে এবং আপনার যুদ্ধের কথা বলাও ঠিক আছে তবে অবশ্যই আপনার যুদ্ধের বিবরণটি বিস্তারিতভাবে জানানো উচিৎ নয়। প্লাস, আপনি আপনার বন্ধুর থেকে সৎ মতামত নিতে পারেন কিন্তু আপনার মারামারির ব্যাখ্যা করবেন না।

 

 

 

 

 

 

২. অন্তরঙ্গতার বিবরণ

দরজার পিছনের জিনিস গোপন রাখতে হবে। আপনার সঙ্গী একজন তৃতীয় ব্যক্তির কাছ থেকে আপনাদের অন্তরঙ্গতার বিবরণ সম্পর্কে শুনতে খুব বিব্রতকর হবে। শুধুমাত্র আপনি আপনার বন্ধুদের সামনে আপনার সঙ্গীর সম্মান রক্ষা করতে পারেন।

 

 

 

 

 

৩. বেডরুমের সমস্যা

বেডরুমের আলোচনা বিশ্বাসের সাথে সম্পন্ন করা হয় যা আপনাকে বুঝতে হবে। আপনার যদি এতে খুব বেশি আগ্রহ না থাকে তবে এটি আপনার সঙ্গীর কাছে ব্যাখ্যা করুন, কিন্তু দয়া করে বন্ধুদের সামনে এই বিষয়ে কথা বলবেন না।

 

 

 

 

 

৪. তাদের ব্যক্তিগত সমস্যা

শুধু শারীরিক অন্তরঙ্গতা ছাড়া একটি সম্পর্কে আরো অনেক কিছু আছে। তারা শুধু আপনাকে বিছানায় সঙ্গী হিসাবে চায় না, সমস্যার সমাধানের সঙ্গী হিসাবেও চায়। এবং যদি এই আশার মধ্যে তারা নিজের সম্পর্কে কিছু ব্যক্তিগত কথা ভাগ করে নেয়, অন্য বন্ধুদের সাথে তা ভাগ না করাই ভালো ।

 

 

 

 

 

 

৫. তাদের অতীতের সম্পর্ক

মানে এর কি প্রয়োজন ? আপনি জানতে চান এবং আপনি এখন এটা জানেন। আপনার সঙ্গী এটা নিয়ে কি করবে ? আপনারা উভয়ে আপনার সঙ্গীর অতীত সম্পর্ক নিয়ে কি করবেন, সাধারণত এটার কোন কাজ নেই।

 

 

 

 

 

৬. অভিযোগ

আপনার সঙ্গীর সাথে যদি আপনার কোন অভিযোগ থাকে, তাহলে তার সাথে বসে কথা বলুন। কিন্তু যদি আপনি আপনার বন্ধুদের কাছে এটি নিয়ে প্রায়ই অভিযোগ করেন, আমি মনে করি তারা আপনাকে সেই ব্যক্তিকে ছেড়ে দেওয়ার পরামর্শ দেবে।

 

 

 

 

 

৭. তুলনা করা

আপনার সঙ্গীর সাথে আপনার প্রাক্তন বা আপনার বন্ধুর সঙ্গীর সাথে তুলনা করার কোন মানে হয় না।

 

 

 

 

 

 

৮. আপনার সঙ্গির দেওয়া ভয়ঙ্কর উপহার বন্ধুদের দেখানো

আপনি উপহারটি পছন্দ নাই করতে পারেন, তবে এটা ঠিক না যে আপনি আপনার বন্ধুর সাথে এই জিনিসটি নিয়ে হাসি ঠাট্টা করবেন। আপনার সঙ্গীকে একটি বিরতি দিন কারণ অন্তত তারা চেষ্টা করছে বা আপনি আপনার সঙ্গীর সাথে এটি নিয়ে আলোচনা করতে পারেন যাতে একই জিনিস পুনরাবৃত্তি না হয়।

 

 

 

 

 

 

৯. আপনার সঙ্গীর নিরাপত্তাহীনতা

আপনারা একে অপরের নিরাপত্তাহীনতা জানেন কারণ আপনারা একে অপরের সাথে সুরক্ষা বোধ করেন। কিন্তু এই ব্যক্তিগত জিনিস জনসাধারণের সামনে প্রকাশ করে আপনার সঙ্গীর বিশ্বাসকে তিরস্কার করবেন না।

 

 

 

 

 

 

১০ আপনার সঙ্গী আপনার বন্ধুদের সম্পর্কে কি ভাবে

আপনার সঙ্গী আপনার কোন বন্ধুকে পছন্দ নাই করতে পারে, সে আপনার বন্ধু তার বন্ধু নয়। আপনার পরিস্থিতি অনুযায়ী বাবস্থা নেওয়ার চেষ্টা করা উচিৎ।

 

 

 

 

 

 

 

১১. অর্থ সমস্যা

যদি আপনি এবং আপনার সঙ্গী অর্থ সংক্রান্ত সমস্যার সম্মুখীন হন তাহলে এটি আপনার সমস্যা, অন্যদের নয়। একজন ব্যক্তি অর্থ সমস্যায় পড়তে পারে তবে এটি নিয়ে আপনার বন্ধুকে গল্প করার পরিবর্তে এটি নিয়ে আলোচনা করে সমাধান করা উচিৎ।