প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:     বাংলাদেশের গণপরিবহণ এবং সড়কের নিরাপত্তায় কাজ করার অঙ্গীকার করলেন সালমান মুক্তাদির। এর জন্য সকলের কাছ থেকে সাহায্য, সহযোগিতা আর তথ্য চেয়েছেন বাংলাদেশের প্রথম সফল ইউটিউবার এবং মডেল-অভিনেতা সালমান। পাশাপাশি বাংলাদেশের সড়কপথ নিরাপদ করতে সকলকে সচেতন হয়ে কাজ করার প্রতিও আহবান জানান তিনি।

 

 

 

 

 

আজ সোমবার সন্ধ্যায় নিজ ফেসবুক পেইজে লাইভে এসে এক ভিডিও বার্তায় এই আহবান জানান সালমান মুক্তাদির। গতকাল রবিবার রাজধানীতে বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী মৃত্যুর ঘটনার সূত্র টেনে ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, “আমরা খুবই অপ্রীতিকর পরিস্থিটির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি।

 

 

 

 

আমরা আজ এ নিয়ে প্রতিবাদ করছি কিন্তু আমাদেরকে এ বিষয়ে আরও আগেই সচেতন হওয়া উচিত ছিল। আজকের এই অবস্থা আসত না যদি আমরা আমাদের চলার পথে প্রথম যেদিন কোন বাস চালককে বেপরোয়া চালাতে দেখেছি সেদিন যদি ঐ চালকের কানের নিচে ঠাটায়া একটা চড় দিতাম”।

 

 

 

 

 

এসময় তিনি আরও বলেন, “সড়কের কোন গণপরিবহণ আইন মেনে চলে না। আর এগুলো দেখার যাদের দায়িত্ব তারা কোন পদক্ষেপ নেয় না। আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক হতে পারি, সাবধান হতে পারি।

 

 

 

 

কিন্তু চালক যদি এরপরও আমাদের শরীরে গাড়ি চালিয়ে দেয় তাহলে দোষ কার? দোষ আমাদের। রাস্তায় যে পুলিশের সার্জেন্ট থাকে সে প্রতিদিন দেখে যে এই বাসগুলোই আইন ভেঙ্গে বেপরোয়াভাবে চলাচল করে। সে কী পদক্ষেপ নেয়!”।

 

 

 

 

 

প্রায় দশ মিনিটের এই লাইভ ভিডিও বার্তায় সালমান জানান যে, এরপর থেকে কোন গাড়িকে বিপজ্জনক অবস্থায় চলাচল করতে দেখলে তিনি নিজে এর প্রতিবাদ করবেন।

 

 

 

 

তিনি বলেন, “আমি সালমান মুক্তাদির বলছি যে, এরপর যদি কোন গাড়িকে এমনভাবে চলতে দেখি যে, এরফলে ভবিষ্যতে কোন দূর্ঘটনা ঘটতে পারে তাহলে আমি নিজে রাস্তায় নামব।

 

 

 

 

আমি নেমে ট্রাফিক সার্জেন্টের কাছে এ বিষয়ে সাহায্য চাইব। কিন্তু যদি তিনিও সাহায্য না করে তাহলে আমি কোথায় যাব? আপনারা আমাকে বলে দিবেন আমি কোথায় যাব?”

 

 

 

 

 

সবার প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, “আপনারা যদি চিন্তা করেন যে, এই যে, জীবনগুলো চলে গেলো, তাদের জন্য কিছু করি তাহলে এখন থেকেই আমরা অ্যাকশন নেই।

 

 

 

 

আপনারা যদি অ্যাকশন নিতে না পারেন তাহলে আপনারা আমাকে বলুন যে, তুমি সালমান মুক্তাদির অমুক অফিসে যাও, অমুক জায়গায় দরখাস্ত দাও; আমি দেব”।

 

 

 

 

 

একই ভিডিও বার্তায় এমন আহবানের জন্য বিপদের আশংকাও করেন সালমান মুক্তাদির। তিনি বলেন, “আমার এই পদক্ষেপের জন্য আমাকে যদি কোথাও বিব্রত হতে হয়, বিতর্কের মুখে পরতে হয় তবুও আমি তা করে যাব।

 

 

 

 

এটা আমার জন্য প্রথমবার না। আমি এর আগেও রাজনৈতিক ব্যক্তি বা ব্যবসায়ী বা এমন খুনের বিরুদ্ধে কথা বলেছি। আমি এর সাথে অভ্যস্ত। আমি চাই এবার আপনারা আমার সাথে থাকুন।

 

 

 

 

আপনারা আমাকে জানান কী করলে আমরা এই অবস্থার উন্নতি করতে পারি”। এসময় একসাথে সবাই মিলে কাজ করলে অবস্থার উন্নতি হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন এই তরুণ ইউটিউবার।

 

 

 

 

 

প্রসঙ্গত, গতকাল রবিবার রাজধানীর কুর্মিটোলায় জাবালে নূর নামে দুই বাসের প্রতিযোগিতায় প্রাণ হারায় দুই শিক্ষার্থী। এর দাবিতে আজ সোমবারও রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা।