প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:       প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে গত ৯ বছর ধরে গরু কোরবানি দিচ্ছেন টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা জাবেদ আলী।তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক। জাবেদ আলী গোড়াই ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের ডেপুটি কমান্ডার।এবছরেও তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে গরু কোরবানি দেয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। তার বাড়ি মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের গোড়াই খামারপাড়া গ্রামে।

 

 

 

 

 

মুক্তিযোদ্ধা জাবেদ আলী বলেন, ১৯৬২ সালে লতিফ সিদ্দিকীর মাধ্যমে আমি মুজিব আদর্শে দীক্ষিত হই। পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর ডাকে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিই। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের ঘটনায় বুকটা ভেঙে যায়।তবুও ভুলিনি মুজিবকে। এর মধ্যে অনেক কষ্ট-নির্যাতন সইতে হয়েছে। মুজিব আদর্শ বুকে ধারণ করে আশায় ছিলাম বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে তার উত্তরসূরি আসবেন। অবশেষে শেখ হাসিনা মুজিবের স্বপ্ন বাস্তবায়নের দায়িত্ব নিলেন। আমরা আশায় বুক বাঁধলাম।জাবেদ আলী বলেন, ওয়ান ইলেভেনের সময় বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করা হলো। তখন আল্লাহর কাছে মোনাজাত করে অঙ্গীকার করেছিলাম, শেখ হাসিনা মুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী হলে তার নামে প্রতি বছর আমি কোরবানি দেব।

 

 

 

 

সেই থেকে গত ৯ বছর ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে কোরবানি দিয়ে আসছি। এবারও শেখ হাসিনার নামে কোরবানি দেয়ার জন্য ৪২ হাজার টাকা দিয়ে একটি গরু কিনেছি। গরু কোরবানি দিয়ে মাংস বণ্টন করব।মির্জাপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার অধ্যাপক দুর্লভ বিশ্বাস বলেন, মুক্তিযোদ্ধা জাবেদ আলী এলাকায় একনিষ্ঠ মুজিব আদর্শের সৈনিক হিসেবে পরিচিত। এছাড়া স্পষ্টবাদী জাবেদ আলী সব সময় ন্যায়ের পক্ষে কাজ করছেন।