প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:    কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর নামাজে জানাজা শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) বাদ জুমা জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

 

 

 

তিনি বলেন, ‘আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ আজ সারাদিন এই হাসপাতালেই থাকবে। বিকেল চারটায় সর্বস্তরের জনগণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য মরদেহ শহীদ মিনারে রাখা হবে। শুক্রবার জানাজা শেষে মরদেহ চট্টগ্রামে গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হবে। শনিবার নিজ গ্রামে জানাজা শেষে মায়ের কবরের পাশে শায়িত করা হবে।’

 

 

 

 

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে রাজধানীর পান্থপথের স্কয়ার হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই নিজের ব্যক্তিগত গাড়িতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু।

 

 

 

 

 

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, সম্প্রতি তার হৃদযন্ত্রের কার্যকারিতা ৩০ শতাংশের নিচে নেমে আসে।

 

 

 

 

স্কয়ার হাসপাতালের মেডিসিন অ্যান্ড ক্রিটিক্যাল বিভাগের পরিচালক ডা. মির্জা নাজিমুদ্দীন জানান, সকাল সাড়ে আটটায় বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হন আইয়ুব বাচ্চু। তার ব্যক্তিগত গাড়িচালক তার গাড়িতে করে সকাল ৯টা ৪০ মিনিটের দিকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। আমরা সব ধরনের চেষ্টা করেছি। তবে পথিমধ্যেই তার মৃত্যু হয়।

 

 

 

 

তিনি আরও জানান, ২০০৯ সালে প্রথমবারের মতো তার হার্টে রিং পরানো হয়। তবে সম্প্রতি তিনি ঘনঘন হৃদরোগে ভুগছিলেন। দুই সপ্তাহ আগেও তিনি শরীর চেকআপ করাতে হাসপাতালে এসেছিলেন।

 

 

 

 

 

ডা. নাজিমুদ্দীন বলেন, সম্প্রতি তার হৃদযন্ত্রের কার্যকারিতা ৩০ শতাংশের নিচে নেমে এসেছিল। যাকে মেডিকেলের ভাষায় বলা হয় কার্ডিওমায়োপ্যাথি। হাসপাতালে আনার সময় কার্যকারিতা শূন্যের ঘরে চলে আসে। আর এতেই তার মৃত্যু হয়।