প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:    মেয়েদেরকে আহব্বান করছি- সমস্ত মেয়েদেরকে আহব্বান করছি প্লিজ বোন মাত্র ২ মিনিট ব্যয় করে লেখাটা পড় ! আর সম্ভব হলে ছেলে বা মেয়ে সকলেই পোস্টটি শেয়ার কর।– বোন সেলফি দিও না ফেসবুকে!– কেন?!!!– কারন জাহান্নামের আগুন সহ্য করার ক্ষমতা আমাদের নাই!!!তুলতুলে গাল দুইটার কি হবে জান? তুলতুলে গালের ছিটে ফোঁটা অস্তিত্ব থাকবেনা.. শুধু আগুন থাকবে মুখমন্ডল জুড়ে! কি বিশ্বাস হয়না? বিশ্বাস না হলে # সূরাইবরাহীম৫০ আয়াতের অর্থ দেখো!এখানেই শেষ না বোন! আল্লাহর অবাধ্যতা করলে অনন্তকাল জাহান্নামে পুড়তে হবে! যখনই গায়ের চামড়া পুড়ে কয়লা হয়ে যাবে তখনই তার স্থলে নতুন চামড়া সৃষ্টি করে দিবেন আল্লাহ যাতে পাপীরা গুনাহের শাস্তি পরিপূর্ণ ভাবে ভোগ করে।এটা আমার বানিয়ে বানিয়ে বলা গল্প না…

 

 

 

 

সূরানিসা৫৬তমআয়াত_এটি !
জীবনে যে কখনো নামায আদায় করেনি,পর্দা যে স্বপ্নেও ভাবতে পারেনা সেও কোনদিন বলবেনা কোরআনের আয়াত মিথ্যা! এখন বলো বোন! কার জন্য এবং কিসের জন্য তুমি নিজের উপর এমন লানত নিয়ে ঘুরছো! সামান্য কয়টা লাইক? নোংরা কিছু কমেন্ট? এসব দিয়ে কি হবে তোমার? ডিমান্ড বাড়বে? কার কাছে?নষ্ট হয়ে যাওয়া কিছু ছেলের কাছেই কেবল বাবা- মা মেরে পিটে মানুষ করতে পারেনি এমন কিছু ছেলে আর কিছু ব্যক্তিত্বহীন ছেলেই তোমার ছবিতে কমেন্ট করবে wow hot!প্রকৃতই যারা পুরুষ তারা কখনো ঠুনকো লাইক, কমেন্ট দিয়ে তোমার সৌন্দর্য যাচাই করবেনা! তবে কার জন্য নিজেকে একটু একটু করে সস্তা করছো?তুমি তো সস্তা জাতি নও! তুমি তো সেই জাতি যাদের জীবন্ত কবর দেয়ার প্রথা থেকে তুলে এনে পুরুষের জন্য চক্ষুশীতল কারীনি বানানো হয়েছে!তুমি তো সেই জাতি যারা রাসূল (সাঃ) এর নবুয়ত প্রাপ্তির পর প্রথম ইসলাম কবুল করার সৌভাগ্য পেয়েছে!তুমি তো সেই সে জাতি দুনিয়াতে থাকা অবস্থাতেই জান্নাতের নেত্রী হওয়ার সুসংবাদ পেয়েছে! তুমি তো সেই জাতি যাদের পদতলে জান্নাতের ঘোষনা দেয়া হয়েছে! তুমি এতটা সস্তা নও যে নষ্ট হয়ে যাওয়া একদল কাপুরুষের লাইক, কমেন্ট নিয়ে তোমাকে নতুন করে জাতে উঠতে হবে!

 

 

 

 

 

 

সময় হারানোর পূর্বেই সব সেলফি-টেলফি সরাও বোন…অন্যের মনোরঞ্জনের জন্য নিজেকে জাহান্নামী করার মত বোকা তুমি নও! সেই দিন আসবার পূর্বেই নিজেকে শুধরাও যেদিন আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব কোন কাজেই আসবেনা!ওমা তওফিকী ইল্লা বিল্লাহ..১৪০০ বছর আগে রাসুল (সাঃ) যা বলে গিয়ে ছিলেন আজ বিজ্ঞানীরা তা প্রমাণ পেয়েছে!মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেনঃ “পুরুষের প্যান্ট বা কাপড় পায়ের টাখনুর উপর পড়তে হবে। অন্যথায় তারা জাহান্নামে যাবে।”– (সহীহ বুখারী ৫৩৭১)বিজ্ঞান বলে, পুরুষের টাখনুর ভিতর প্রচুর পরিমানে হরমোন থাকে এবং তার আলো বাতাসের প্রয়োজন হয়। তাই কেউ যদি তা খোলা না রেখে ঢেকে রাখে, তাহলে তার যৌনশক্তি কমে যাবে এবং বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হবে।মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন, “ভ্রু প্লাগকারীর উপর আল্লাহর লানত”– (সহীহ বুখারী ৫৫১৫)

 

 

 

 

বিজ্ঞান বলে, ভ্রু হলো চোখের সুরক্ষার জন্য। ভ্রুতে এমন কিছু লোম থাকে যদি তা কাটা পড়ে যায় তাহলে ভ্রুপ্লাগকারী পাগল হতে পারে, অথবা মৃত্যুবরণও করতে পারে।রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “নেশা জাতীয় দ্রব্য খাওয়া হারাম”– (সহীহ বুখারী ৬১২৪)বিজ্ঞান বলে, ধুমপানের কারনে ফুস্ফুসের ক্যান্সার, ব্রংকাইটিস ও হৃদরোগ হয়ে মানুষ মারা যায়। ধুম্পান করলে ঠোট, দাতের মাড়ি, আঙ্গুল কালো হয়ে যায়। যৌনশক্তি ও ক্ষুধা কমে যায় এমনকি স্মৃতিশক্তি ও কমে যায়।রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “পুরুষের জন্য স্বর্ণ ব্যবহার হারাম।”– (মুসলিম ১৬৫৫)বিজ্ঞান বলে, স্বর্ণ এমন একটি পদার্থ যা স্কিনের সাথে মিশে ব্লাডের মাধ্যমে ব্রেনে চলে যায়। আর তার পরিমান যদি ২.৩ হয় তাহলে মানুষ তার আগের স্মৃতি সব হারিয়ে ফেলবে।
রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, ঘুমানোর সময় আলো নিভিয়ে এবং ডান কাত হয়ে ঘুমাতে।– (সহীহ বুখারী ৩২৮০)

 

 

 

 

 

বিজ্ঞান বলে, ডান কাত হয়ে ঘুমালে হার্ট ভালো করে পাম্প করে। আর লাইট না নিভিয়ে ঘুমালে ব্রেনের এনাটমি রস শরীরে প্রবেশ করতে পারে না, যার ফলে ক্যান্সার হওয়ার খুব সম্ভবনা থাকে।রাসুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “তোমরা গোফ ছেটে ফেল এবং দাড়ি রাখ।”– (সহীহ মুসলিম ৪৯৩ ও ৪৯৪)
বিজ্ঞান বলে, দাড়ি না রাখলে স্ক্রিন ক্যান্সার, ফুস্ফুসের ইনফেকশন এবং ৪০ এর আগে যৌবন হারানোর সম্ভবনা থাকে।আল্লাহ সুবনাহু তায়ালা বলেন, “আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়োনা। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং ধ্বংসের পথ।”– (বনি ইসরাঈল ৩২) নেশাগ্রস্থ শয়তানের কাজ (মাইদাহ ৯০)বিজ্ঞান বলে, পর্নোগ্রাফি ও অশ্লীল সম্পর্ক সহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য নেশায় যদি কেউ জড়িয়ে পড়ে, তাহলে তার ব্রেনের ফরেন্টাল এরিয়া পরিচালনা করার ইনটেলেকচুয়াল সেলগুলো থরথর করে কাপতে থাকে এবং অস্থির হয়ে যায়। যার ফলে সে নেশাগ্রস্থ হয়ে মাতাল ও অসুস্থের মত জীবন পরিচালনা করে। এবং তা তাকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়।

 

 

 

 

 

আল্লাহ বলেন, “আর যখন কোরআন পাঠ করা হয়, তখন তাতে কান লাগিয়ে রাখ এবং নিশ্চুপ থাক যাতে তোমাদের উপর রহমত হয়।”
– (আরাফ ২০৪)বিজ্ঞান বলে, কুরআনের সাউন্ড ওয়েব শরীরের সেলগুলোকে সক্রিয় করে, অসুস্থতা আরোগ্য করে বিশেষ করে হার্ট এবং ক্যান্সার রোগীদের। আর ব্রেনকে এমনভাবে চার্জ করে, ঠিক যেমন ভাবে ফিউজ হওয়া ব্যাটারীকে সচল করা হয়।