প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এখনো নির্বাচনের যোগ্য বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, খালেদা জিয়া অংশ নিতে পারবেন।আজ সোমবার দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎ গ্রহণের এক পর্যায়ে বেরিয়ে এসে তিনি এসব কথা বলেন।মির্জা ফখরুল বলেন, সংলাপের সময় বলা হয়েছিল তফসিল ঘোষণার পর আর কোনো মামলা হবে না। কিন্তু ক্ষোভের বিষয় হলো আমাদের যে সব প্রার্থীর জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তাদের নামে মামলা দেওয়া হচ্ছে।

 

 

 

 

 

 

দলের মনোনয়নের বিষয়ে তিনি বলেন, যারা দলের প্রতি অনুগত, দলের প্রতি আস্থাবান তাদের মনোনয়ন দেওয়া হবে।মনোনয়ন বোর্ডে রয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।এর আগে আজ সোমবার সকাল ১০টার দিকে দ্বিতীয় দিনের সাক্ষাৎকার শুরু হয়। আজ সকাল ১০টা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত চলে বরিশাল বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার। এরপর বেলা আড়াই থেকে সাক্ষাৎকার শুরু হয়েছে খুলনা বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের।

 

 

 

 

 

 

গতকাল প্রথম দিন সকালে রংপুর বিভাগের ৩৩ আসনে ১৫৮ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী সাক্ষাৎকার দেন। এ ছাড়া বিকেলে রাজশাহী বিভাগের ৩৯টি আসনের বিপরীতে ৩৬৮ জন সাক্ষাৎকার দেন। তাদের সবাইকে নির্বাচন কমিশনে মনোনয়নপত্র জমা দিতে বলা হয় বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে। একই সঙ্গে বিএনপির মহাসচিব স্বাক্ষরিত প্রত্যায়নপত্র দেওয়া হয়।সব বিভাগের সাক্ষাৎকার শেষ হলে আগামী ৮ ডিসেম্বর প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হবে বলেও বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।