প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হলে মানুষ কত কিছুই না করে! তবে জাপানের আকিহিকো কন্দো যা করেছেন তা এক কথায় অবিশ্বাস্য। তিনি ভালোবাসার নারীর কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়ে এমন এক কাণ্ড ঘটিয়েছেন যা তাকে আলোচনায় নিয়ে এসেছে।চলতি মাসের ৪ তারিখ তিনি একটি হলোগ্রাম পুতুলকে বিয়ে করেছেন। কাঁচের বাক্সে ঘেরা আলো দিয়ে তৈরি টু ডাইমেনশন চরিত্রকে বলা হয়- হলোগ্রাম।

 

 

 

 

আলো সরানোর ব্যবস্থা নেই, তাই রেপ্লিকা তৈরি করে বিয়ের আয়োজন করেছেন কন্দো। টোকিওর একটি কমিউনিটি সেন্টারে বেশ ধুমধাম করে এই বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। দুই মিলিয়ন ইয়েন খরচ করে বিয়ের যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে।

 

 

 

 

তবে বিয়েতে আকিহিকোর কিছু কাছের বন্ধু ছাড়া কোনো আত্মীয়-স্বজন উপস্থিত ছিলেন না। এমনকি তার মা এই বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে অস্বীকৃতি জানান। কারণ তার ছেলে একজন রক্ত মাংসের মানুষ ছাড়া একটি পুতুলকে বিয়ে করবে এটা তিনি কিছুতেই মেনে নিতে পারেননি। তবে জাপান পার্লামেন্টের একজন সদস্য বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

 

 

পঁয়ত্রিশ বছর বয়সি আকিহিকোর পুতুল বিয়ে করার পেছনে বেশ কিছু কারণ রয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো- বালক বয়সে আকিহিকো কয়েকজন নারীর কাছ থেকে প্রেমের প্রস্তাবে প্রত্যাখ্যাত হয়েছিলেন। এছাড়া কিছু নারী তাকে বেশ কড়া ভাষায় অপমান করেছিলেন।ফলে বালক বয়স হতে তার মনে এক ধরনের নারী বিদ্বেষ জন্মে। যেটা তাকে এই অদ্ভুত সিদ্ধান্ত নিতে উৎসাহিত করেছে। চারদিকে সমালোচনার ঝড় উঠলেও আকিহিকো তার সিদ্ধান্তে যথেষ্ট খুশি।

 

 

 

 

 

টুইটারে কিছু ছবি শেয়ার করে ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন : ‘আমি জীবনে কোন মেয়ের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার কথা ভাবতেও পারি না।আমি আজ মিকুকে (পুতুলটির নাম) বিয়ে করলাম। আমি তার সাথে কখনো প্রতারণা করব না। সেও আমার সাথে কখনো প্রতারণা করবে না। আশা করি সকলেই আমার সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা করবেন।’