স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ পার্টনারের অটো রাইচ মিলের ব্যবসা করতে গিয়ে পথে বসেছে টিপু সুলতান নামে এক তরুন যুবক। যৌথ ব্যবসার মুনাফা তো দুরের কথা এখন আসল টাকাই আত্মসাতের চেষ্টা করছেন আজাদ আমিন নামে এক ব্যবসায়ী।

তিনি ঝিনাইদহ সদর উপজেলার হাটগোপালপুরের আমিন উদ্দীন বিশ্বাসের ছেলে। টিপু সুলতান টাকা উদ্ধারের জন্য আজাদ আমিনের বিরুদ্ধে ঝিনাইদহের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ৪০৬/৪২০ ধারায় মামলা করেছেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দিয়েছেন।

আগামী ১৫ দিসেম্বর মামলার পরবর্তী দিন রয়েছে। আদালতে দাখিল করা নালিশী অভিযোগ টিপু সুলতান উল্লেখ করেছেন ২০০৯ সালে যৌথ বিনিয়গে আজাদ আমিনের সাথে একটি বাছাই (অটো রাইচ) মিল স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। সে মোতাবেক টিপু সুলতান ১৪ লাখ ৮০ হাজার টাকায় তার দুইটি ট্রাক বিক্রি করে ব্যাংকের মাধ্যমে আসামী আজাদ আমিনকে তার চলিতি হিসাব নং ৫৫২, হটিগোপালপুর শাখা সোনালী ব্যাংকের একাউন্টে দেন। সর্বমোট টিপু সুলতান বিভিন্ন সময় ৪৩ লাখ ৯৫০ টাকা আজাদ আমিনকে প্রদান করেন। দুই বছর ৭ মাস মিলটি চলার পর লাভ্যাংশ অংশ মোতাবেক ভাগাভাগি করে নেন। বাদীর সাথে আসামীর সুসম্পর্ক থাকায় তাদের মধ্যে কোন লিখিত ছিল না। কিছুদিন চলার পর বাদী টিপু সুলতান একটি মামলায় গ্রেফতার হলে তার অবর্তমানে মুক্তার মৃধা ও কবিরসহ ৫ জনকে পার্টনার করে নতুন করে চুক্তিবদ্ধ হন আজাদ আমিন। বাদী জামিনে মুক্ত হয়ে আসামীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি যৌথ ব্যবসার কথা অস্বীকারসহ বিনিয়োগ ও লাভের টাকাও দিতি অস্বীকার করেন।

স্থানীয় ভাবে এ ব্যাপারে শালিস বৈঠক হলে তিনি বাদীর কাছ থেকে উক্ত টাকা লোন হিসেবে গ্রহন করেছেন বলে স্বীকার করেন। পরবর্তীতে তিনি টাকা পর্যায়ক্রমে ফেরৎ প্রদানের অঙ্গীকার করেন। কিন্তু অদ্যবধী আসামী কোন টাকা পরিশেধ করেন নি। উপরন্ত তিনি টাকা চাইলে টাকার কথা অস্বীকার করে বাদীকে খুন জখমের হুমকী দিচ্ছেন। আজাদ আমিন অন্যায় ভাবে লাভবান হওয়ার জন্য টিপু সুলতানের টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করছেন বলে বাদী তার আর্জিতে উল্লেখ করেন।