প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ  ‘পারিশ্রমিক’ নয়, ‘ডোনেশন’! বিনিময়ে রাতভর শরীরী খেলা! এসকর্ট সার্ভিসের রঙিন হাতছানি শহরের নানা কোণে। বলছে ওয়েবসাইট।কলেজ ছাত্রী থেকে গৃহবধূ, বিমান সেবিকা থেকে কলসেন্টার কর্মী। এমনকী, টিভি অভিনেত্রীও! তালিকায় নাকি এঁরা সব্বাই রয়েছেন। আছেন সোনালি চুল আর সাদা চামড়ার বিদেশিনীরাও। অন্তত কলকাতার এসকর্ট সার্ভিসগুলির ওয়েবসাইটে তেমন তথ্যই মিলছে। ওয়েবসাইট জানাচ্ছে, উপযুক্ত টাকা খরচ করতে পারলেই এঁদের শয্যাসঙ্গী হিসেবে পাওয়া সম্ভব।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

তবে, ‘পারিশ্রমিক’ নয়। ওঁদের ভাষায়, ‘ডোনেশন’! ঘণ্টা প্রতি দরে কিংবা সারা রাতের চুক্তি। সেসবও সাইটেই পরিষ্কার করে দেওয়া রয়েছে। সবচেয়ে কম খরচ কলেজ পড়ুয়া বা গৃহবধূদের ক্ষেত্রে। সবচেয়ে বেশি খসবে ‘স্ট্রাগলিং অ্যাক্ট্রেস’ আর ‘ভিআইপি মডেল’-দের সঙ্গে সময় কাটাতে চাইলে। ঘণ্টায় প্রায় এক লক্ষ টাকা। সারা রাতের জন্য কিছুটা ছাড়ে, দু’লাখ! আবার ক’বার সঙ্গম হবে, তার উপর নির্ভর করেও কখনও কখনও হিসেব কষা হয়ে থাকে।কিন্তু ওয়েবসাইট তো যোগাযোগের মাধ্যম, এঁদের দেখা মিলবে কোথায়? সে হদিশও রয়েছে এই সাইটগুলিতে। শহরের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে রয়েছে এঁদের ঘাঁটি। পার্কস্ট্রিট, ধর্মতলা, বড়বাজার, যাদবপুর, ভবানীপুর ও আরও অনেক জায়গা। এমনকী, কলকাতা ছাড়িয়ে হাওড়া কিংবা বারাকপুরেও পৌঁছে গিয়েছে ‘সার্ভিস’! রয়েছে দুর্গাপুর, নৈহাটি বা ধানবাদের মতো জায়গার নামও।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

কোন চত্বরে কে দায়িত্বে আছেন, তার উল্লেখও রয়েছে কোনও কোনও সাইটে। রয়েছে খাটো পোশাক বা একেবারে বিনা পোশাকের উত্তেজক ছবি। সঙ্গে তাঁদের সংক্ষিপ্ত পরিচয়, বয়স, চুলের রং, স্তন কিংবা নিতম্বের মাপ, এই সবও।কাজেই শহর কলকাতা শুধু নিজে আড়ে-বহরে বাড়ছে না। তার দিনের আলো আর রাতের অন্ধকারকেও চারপাশে ছড়িয়ে দিচ্ছে। ছড়িয়ে দিচ্ছে তার রক্তে-মাংসে মিশে থাকা এক ‘বীভৎস মজা’!