প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ   নড়াইল হবে প্রজন্মের শ্রেষ্ঠতম বাসস্থান’ এই ব্রত নিয়ে কাজ শুরু করা নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন এবার হাত দিয়েছে জেলার আইনশৃঙ্খলার কাজে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পরিবেশ কিংবা অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের নিজ উদ্যোগে নড়াইল সদর এবং লোহাগড়া পৌর এলাকায় বসানো হয়েছে ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা। আর এসব ক্যামেরা মনিটরিং করছে পুলিশ। ফলে ছিনতাই, ইভটিজিং, মোটরসাইকেল চুরিসহ নানা অপরাধ সংগঠনের আগেই বুঝে ফেলছে পুলিশ। এতে ফলে আইনশৃঙ্খলার উন্নতি এবং সামাজিক অপরাধ কমতে শুরু করেছে।

 

 

 

 

 

 

হাসপাতালের ভেতর থেকে কিংবা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় অথবা প্রেস ক্লাবে রাখা মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে প্রচুর। প্রায় প্রতিদিনই নড়াইল শহরে চুরি হতো মোটরসাইকেল। রাস্তাঘাটে ইভটিজিং বেড়েই চলেছিল, শহরে নেশাখোরদের দৌরাত্ম্য, ছিনতাই এর মতো ঘটনা ঘটছিল প্রতিনয়ত। এসব সামাজিক অপরাধ এড়িয়ে সুস্থ জীবনের প্রত্যাশায় নগরবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ছিল শহরের গুরুত্বপূর্ণ ও ঝুকিপূর্ণ স্থানসমূহে সিসিটিভি বসানোর।

 

 

 

 

 

 

 

নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন সূত্রে জানা গেছে, বিদেশি প্রতিষ্ঠান ডাওয়া এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি সিডনি সান এর সাথে প্রায় দুই মাস আগে নড়াইল একপ্রেস ফাউন্ডেশনের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চেয়ারম্যান মাশরাফি বিন মর্তুজা এ চুক্তি স্বাক্সর করেন। এর মাধ্যমে নড়াইল শহর ও লোহাগড়ার ২৪টি পয়েন্টে প্রাথমিকভাবে ৫৮টি সিসি ক্যামেরা বসেছে। এ সকল ক্যামেরা আগামী দুই বছর ওই প্রতিষ্ঠানই দেখভাল করবে।