প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ  ২০১৮ সালে ইরানে সামরিক অভিযানের পরিকল্পনা করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। রোববার প্রভাবশালী পত্রিকা ওয়াল স্ট্র্রিট জার্নালের প্রতিবেদনে বলা হয়, গেল সেপ্টেম্বরে ইরানে হামলার জন্য মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়কে সম্ভাব্য লক্ষ্যবস্তুর তালিকা তৈরির নির্দেশ দিয়েছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন।যুক্তরাষ্ট্রের এমন গোপন তথ্য ফাঁসের মধ্যেই পরমাণু কর্মসূচি জোরদারের ঘোষণা দিয়েছে তেহরান। ইরানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের মদদ দেয়ার অভিযোগ তুলে দেশটির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

 

 

 

 

 

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর ইরাক সফরের পরপরই রোববার বাগদাদ সফরে যান ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। বৈঠক করেন ইরাকি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ আল হাকিমের সঙ্গে। বৈঠকে আঞ্চলিক নিরাপত্তা, প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে পারস্পারিক সম্পর্ক জোরদারসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন তারা।পরে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর সমালোচনা করে ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইরাক-ইরান সম্পর্ক নষ্ট করতে একের পর এক ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে ওয়াশিংটন। তাদের এসব চেষ্টা ব্যর্থ হবে বলেও মন্তব্য করে জারিফ।জাভেদ জারিফ বলেন, ‘ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করতে ইরাক সরকার যে নীতি গ্রহণ করেছে তা খুবই প্রশংসনীয়। জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস নির্মূলের পর যুক্তরাষ্ট্রসহ কিছু দেশ ইরাক-ইরান সম্পর্কে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে। কিন্তু তাদের এ চেষ্টা কোনো দিনই সফল হবে না।’

 

 

 

 

 

 

পরমাণু অস্ত্র তৈরির মূল উপাদান ইউরোনিয়াম আহরণে আন্তর্জাতিক সীমা না মানার ঘোষণা দিয়েছে তেহরান। ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান আলী আকবর সালেহি বলেছেন, পারমাণবিক জ্বালানি তৈরির ক্ষেত্রে পারমাণবিক চুল্লির জন্য ২০ শতাংশ ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করবে দেশটি। যা আন্তর্জাতিক আইনের বিরোধী।এদিকে, তেহরানের পাল্টা সমালোচনা করে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, ইরানের মাধ্যমে সন্ত্রাসবাদের যে হুমকি সৃষ্টি হয়েছে তা প্রতিহত করার চেষ্টা করছে ওয়াশিংটন। আরব আমিরাত থেকে মার্কিন সংবাদ মাধ্যম সিবিএস টেলিভিশনের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে মাধ্যপ্রাচ্যে ইরানের হুমকির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন পম্পেও।

 

 

 

 

 

 

 

মাইক পম্পেও বলেন, ‘আইএস পুরোপুরি দমন হলেও সন্ত্রাসবাদের হুমকি এখনো রয়ে গেছে। কারণ এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় হুমকি ইরান। তারা সন্ত্রাসবাদকে মদদ দিয়ে যাচ্ছে। সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহার করা হলেও ইরানের হুমকি প্রতিরোধে আমাদের সব ধরনের পদক্ষেপ অব্যাহত থাকবে।’তার এমন বক্তব্যের মধ্যেই বোমা ফাটালো মার্কিন গণমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়, গেল সেপ্টেম্বরে ইরাকের বাগদাদে মার্কিন কূটনীতিক মিশনের কাছে মর্টার হামলার ঘটনায় ইরানে সামরিক অভিযানের পরিকল্পনা করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। এজন্য মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়কে সম্ভাব্য লক্ষ্যবস্তুর তালিকা তৈরির নির্দেশ দিয়েছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন।