প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ   বিশ্বের অর্ধেক মানুষের সমপরিমাণ সম্পদ রয়েছে মাত্র ২৬ ধনীর হাতে। ব্রিটিশ দাতব্য সংস্থা অক্সফাম সোমবার একথা বলেছে। তাদের বর্তমান সম্পদের পরিমাণ ১.৪ ট্রিলিয়ন ডলার। যা বিশ্বের গরীব ৩৮০ কোটি মানুষের সম্পদের সমান।  বিরাট এ ব্যবধান কমিয়ে আনতে সংস্থাটি ধনীদের ওপর করের পরিমাণ বাড়াতে সরকারগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।সুইজারল্যান্ডের দাভোসে অনুষ্ঠেয় বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের সম্মেলনের প্রাক্কালে দাতব্য সংস্থাটি এ প্রতিবেদন প্রকাশ করে।এতে বলা হয়, ২০১৮ সালে বিশ্বব্যাপী ধনকুবেরদের প্রতিদিন সম্পদ বেড়েছে ২৫০ কোটি ডলার করে।

 

 

 

 

 

 

বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি আমাজনের সিইও জেফ বেজোসের সম্পদ গত বছর বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ২০০ কোটি ডলারে। এ পরিমাণ সম্পদ ১০ কোটি ৫০ লাখ জনঅধ্যুষিত ইথিওপিয়ার স্বাস্থ্য বাজেটের সমান।এর বিপরীতে গত বছর ৩৮০ কোটি দরিদ্র লোকের সম্পদ ১১ শতাংশ কমেছে। সর্বত্রই গরীবদের সম্পদ আরো কমছে, আর ধনীদের সম্পদ আরো বাড়ছে। বর্তমানে বিশ্বের মোট জনসংখ্যা ৭৭০ কোটি।অক্সফাম বলছে, ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে সম্পদের এই ব্যাপক বৈষম্য দারিদ্র্য বিরোধী লড়াইকে গুরুত্বহীন করে তুলছে। এছাড়া অর্থনীতিকে করেছে ক্ষতিগ্রস্ত এবং গণঅসন্তোষকে তীব্র করছে।

অক্সফামের নির্বাহী পরিচালক উইনি বিয়ানিমা এক বিবৃতিতে বলেন, বিশ্বব্যাপী জনগণ ক্ষুব্ধ ও হতাশ।অক্সফাম সতর্ক করে বলছে, একই সময়ে দেশে দেশে সরকার শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের মতো সেবা খাতগুলোতে অর্থায়ন কমিয়ে এই বৈষম্যের আরো বিস্তার ঘটাচ্ছে।

 

 

 

 

 

অক্সফামের প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, অতিধনী ব্যক্তি ও কর্পোরেশনগুলো কয়েক দশকে তাদের কর দেয়ার পরিমাণ কমিয়েছে। ফলে, শিক্ষকহীন শিক্ষার্থী, ওষুধবিহীন ক্লিনিকের এখন ছড়াছড়ি।অক্সফামের গবেষণা মতে, এখনো প্রতিদিন ১০ হাজার মানুষের অকাল মৃত্যু হয় শুধু চিকিৎসার অভাবে।২০১৭ সালের প্রতিবেদনে দেখা গিয়েছিল, মাত্র ৮ জন ধনীর হাতে ছিল ৩৬০ কোটি মানুষের সমপরিমাণ সম্পদ।