প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ     সাধের মুঠোফোনটি বছরখানেক ধরে ব্যবহার করছেন? ভাবছেন আরও বছর দুয়েক এটা দিয়েই চালিয়ে নেবেন? এমন মানুষ আপনি একা নন। বিশ্বে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে কয়েক বিলিয়ন এমনটাই করে থাকেন। আর এর ফলেই আইফোন এবং স্যামসাংয়ের মতো জায়ান্ট টেলিকম কোম্পানিগুলোর ব্যবসায় ধস নেমেছে। আর কোম্পানিগুলোর শীর্ষ কর্তাদের কপালে পড়েছে চিন্তার ভাঁজ। কিন্তু সাধারণ একজন প্রযুক্তিপণ্য ব্যবহারকারী হিসেবে এতে আপনার হতাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই। এর বদলে আপনি বরং লাভের আশাই করতে পারেন।

 

 

 

 

 

আইফোনের বিক্রি কমতে থাকায় অ্যাপল ২০১৮ সালের শেষ প্রান্তিকে তাদের রেভিনিউ এস্টিমেট কমিয়ে এনেছিল। আর এর ধাক্কাটা লেগেছে তাদের শেয়ারের দামে। এ বছর জানুয়ারির ৩ তারিখে তাদের শেয়ার মূল্য প্রায় ১০ শতাংশ কমে গেছে। শুধু অ্যাপলই নয়, তাদের পণ্য ও সেবা সরবরাহকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের মূল্যেও ধস নেমেছে।মোবাইল ফোন প্রস্তুতুকারী আরেক জায়ান্ট স্যামসাংও সম্প্রতি জানিয়েছে তাদের সেলফোন বিক্রি আগের থেকে কমে গেছে। বাজার বিশ্লেষকরাও একই সুরে কথা বলছেন। এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৭ সালের তুলনায় ২০১৮ মোবাইল সেট বিক্রি আশঙ্কাজনক হারে কমে গেছে। গত ১০ বছরে এ ঘটনা এবারই প্রথম ঘটলো। এটা কি সেলফোনের ধারণা পুরনো হয়ে যাওয়ারই ইঙ্গিত দিচ্ছে?

 

 

 

 

 

সেলফোনের উন্নয়ন ও গবেষণায় বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার ব্যয় করছে কোম্পানিগুলো। থ্রি-ডি ফেস স্ক্যানার ও উন্নত ক্যামেরাসহ বিভিন্ন ধরনের প্রযুক্তি যুক্ত করা হচ্ছে মোবাইলের সঙ্গে। এতোকিছুর পরেও মোবাইল সেটের বিক্রি কমে যাওয়াটা হতাশাজনকই বটে। কিন্তু যারা নতুন সব প্রযুক্তি পেতে চান তারা এতে আশাবাদী হতেই পারেন।প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতারা এখন হয়তো বুঝবেন যে শুধুমাত্র মোবাইলের পেছনে গাদা গাদা অর্থ বিনিয়োগ করার দিন ফুরিয়ে আসছে। নতুন কোনো প্রযুক্তিকে স্বাগত জানাতে চাইছে বিশ্ববাসী।