প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ   মুখের কালো দাগের সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। সাধারণত ব্রণ, ফুসকুড়ি সেরে যাওয়ার পর মুখের ত্বকে এই ধরনের কালো দাগ রেখে যায়। মুখের মধ্যে এমন দাগ থাকলে যে বিশ্রী দেখায়, তা বলাই বাহুল্য। যাঁর মুখে রয়েছে এই ধরনের দাগ, তিনিও সামাজিক মেলামেশার সময়ে কিছুটা হীনমন্যতায় ভুগতে পারেন।

 

 

 

ঠিকঠাক চিকিৎসায় ব্রণ এবং দাগের হাত থেকে মুক্তি মেলে ঠিকই, কিন্তু তার জন্য যেসব ওষুধ বা ক্রিম জাতীয় জিনিস ব্যবহার করতে হয় সেগুলি যেমন ব্যয়বহুল, তেমনই সেইসব ওষুধ প্রয়োগের ক্ষেত্রে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ভয়ও থেকে যায়। সবচেয়ে ভাল হয়, যদি কোনও প্রাকৃতিক উপায়ে দূর করা যায় এই ধরনের কালো দাগ।

 

 

 

 

আয়ুর্বেদিক জার্নাল ফর মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এ প্রকাশিত একটি গবেষণাত্রে হদিশ দেওয়া হয়েছে তেমনই এক সহজ, ঘরোয়া এবং নির্ভরযোগ্য উপায়ের, যার সাহায্যে মাত্র ৭ দিনে মুখকে করে তোলা যাবে দাগমুক্ত।

এই বিশেষ কৌশলের মূলে রয়েছে একটি সামান্য ঘরোয়া উপাদান, এবং সেটি হল পাতিলেবুর রস। মুখের দাগ তোলার জন্য তিনটি কৌশলে পাতিলেবুর রস প্রয়োগ করার কথা বলা হয়েছে ওই গবেষণাপত্রে। কীরকম? আসুন, জেনে নেওয়া যাক—

 

 

 

 

১. লেবুর রস সরাসরি মুখের দাগযুক্ত অংশে লাগিয়ে নিন। ১৫-২০ মিনিট পরে সাদা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন। দিনে দু’বার এমনটা করুন।

২. এক চা চামচ বিশুদ্ধ মধুর সঙ্গে মিশিয়ে নিন এক চা চামচ পাতিলেবুর রস। এই মিশ্রণ মুখের কালো দাগের উপর আলতোভাবে লাগিয়ে নিন। ১৫-২০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন মুখ।

 

 

 

 

৩. আরও ভাল হয়, যদি এক চা চামচ পাতিলেবুর রসের সঙ্গে মিশিয়ে নিতে পারেন এক চা চামচ টম্যাটোর রস। সেই মিশ্রণে এক চা চামচ ওটমিলও (বাজারে মুদির দোকানে সহজেই কিনতে পাবেন) যদি যোগ করতে পারেন তবে আরও ভাল ফল মিলবে। মুখের দাগ ধরা অংশে এই মিশ্রণ লাগিয়ে মিনিট ১৫ পরে সাদা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন। দিনে বার দু’য়েক এমনটা করুন। রাত্রে শুতে যাওয়ার আগে এই মিশ্রণ অবশ্যই একবার মুখে লাগাবেন।

 

 

 

 

আসলে লেবুতে যে সাইট্রিক অ্যাসিড থাকে, তা ত্বকের পক্ষে খুবই উপকারী। এটি ত্বকের উপর একটি অদৃশ্য সুরক্ষাকবচ তৈরি করে। সেই সঙ্গে ব্রণ বা ফুসকুড়ির কারণ হিসেবে কাজ করে যেসব ব্যাকটেরিয়া, সেগুলিকেও মারে, এবং ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর করে। ফলে পাতিলেবুর রস নিয়মিত প্রয়োগে যেমন দূর হয় ভবিষ্যতে ব্রণ বা ফুসকুড়ি হওয়ার সম্ভাবনা, তেমনই কমে যায় মুখের কালো দাগও।

 

 

 

 

গবেষণাপত্রের দাবি, পাতিলেবুর রসের নিয়মিত প্রয়োগে মাত্র সাত দিনেই অনেকখানি ঝকঝকে দেখাবে মুখ। তাহলে আর দেরি কীসের, আজই শুরু করুন এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনাহীন ঘরোয়া কৌশলের প্রয়োগ, আর এক সপ্তাহে বদলে ফেলুন নিজেকে।