প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ   ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে ছাত্র নেতাদের দৌড়ঝাঁপ বেড়েছে। মূল দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গেও যোগাযোগ বৃদ্ধি করেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। সমমনা ছাত্র সংগঠনগুলোর সঙ্গেও চলছে নানামুখী আলোচনা।অনার্স, মাস্টার্স, এমফিলের ছাত্রছাত্রী ছাড়াও ৩০ বছর বয়সী একাধিক মাস্টার্স, সান্ধ্যকালীন ও অন্যান্য কোর্সের শিক্ষার্থীরাও ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন- এ সিদ্ধান্তের পর থেকেই প্যানেল নির্ধারণে কাজ শুরু করেছে ছাত্র সংগঠনগুলো।

 

 

 

 

 

ছাত্র সংগঠনগুলোর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে পরিচিতি আছে, নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে জড়ানোর রেকর্ড নেই, ফলাফল ভালো এবং সাংগঠনিক প্রজ্ঞার অধিকারীদেরই ভিপি-জিএস পদে ভাবা হচ্ছে।পাশাপাশি আদর্শিক মিল আছে- এমন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের শীর্ষ নেতাদেরও নেয়া হতে পারে প্যানেলে। হল সংসদে শাখার বর্তমান কমিটির শীর্ষ নেতা এবং যারা নতুন করে শীর্ষ পদপ্রত্যাশী তারা অগ্রাধিকার তালিকায়।প্যানেলে চমক রাখার চেষ্টা করছে সংগঠনগুলো। জোটগতভাবে ভোটে অংশ নেয়া ছাড়াও ৫টি ছাত্রী হলের প্রায় ১৫ হাজার নারী ভোটারকে টার্গেট করে পর্যাপ্ত সংখ্যক ছাত্রী, ১৬ হাজারের মতো অনাবাসিক ভোটারের কথা চিন্তা করে হলের বাইরের শির্ক্ষীদের প্যানেলে রাখার কথা ভাবা হচ্ছে। অঞ্চলভিত্তিক ভোট টানার বিষয়টিও মাথায় রাখা হচ্ছে।

 

 

 

 

 

ডাকসু নির্বাচন নিয়ে জানতে চাইলে ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, অনেক বছর পর ডাকসু নির্বাচন হচ্ছে বিধায়, ছাত্র সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতেই সব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।পরবর্তী সময়ে হয়তো বয়স ৩০ বছর থেকে কমে আসবে। প্রার্থিতার বিষয়ে তিনি বলেন, শর্ত থাকবে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে স্নাতক শ্রেণীতে প্রথম বর্ষে ভর্তি হয়ে তা সম্পন্ন করা এবং বয়স ৩০ এর মধ্যে থাকা। এই শর্ত মেনে যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত পর্যায়ে অধ্যয়নরত থাকবে, তারাই প্রার্থী হতে পারবেন।প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক ড. এসএম মাহফুজুর রহমান  বলেন, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ছাত্র হয়েছিল, তারা চার বছরের আন্ডার গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম শেষ করে কনটিনিউ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ে, সেটা মাস্টার্স হতে পারে, মাস্টার্স একই বিভাগে না হয় অন্য বিভাগে হতে পারে, অথবা কেউ কেউ এমফিল করছে অথবা অন্য প্রোগ্রাম যেগুলো আছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সেখানেও ভর্তি হতে পারে; এরাই ভোটার ও প্রার্থী।