প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ   চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) শাখা ছাত্রলীগের দু’পক্ষে দফায়-দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার সকাল পর্যন্ত এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ছাত্রলীগের ৩ কর্মী আহত হয়েছেন। বিবদমান পক্ষ দু’টির একপক্ষ হচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত সিক্সটি নাইন এবং অপর পক্ষ প্রয়াত এ বি এম মহিউদ্দীন চৌধুরীর অনুসারী সিএফসি হিসেবে ক্যা¤পাসে পরিচিত। শিক্ষার্থীরা জানান, মঙ্গলবার রাতে নগরীর ষোলশহর স্টেশনে সিক্সটি নাইন গ্রুপের এক কর্মীকে সিএফসির কর্মীদের মারধরের ঘটনা থেকে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। পরে তা ক্যা¤পাসে ছড়িয়ে পড়ে।

 

 

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার রাত ১০টায় নগরীর বটতলী স্টেশন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গামী শাটল ট্রেন পৌঁছালে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিরো পয়েন্ট এলাকায় সিক্সটি নাইনের এক কর্মীকে বেধড়ক মারধর করে সিএফসি গ্রুপের কর্মীরা। পরে সময়ের ব্যবধানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহাজালাল, শাহ আমানত হলে দু’গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এ সময় উভয় গ্রুপের কর্মীরা একে অপরকে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে।এতে ছাত্রলীগের দুুই কর্মীর মাথা ফেটে যায়।

 

 

 

 

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টার থেকে প্রাপ্ত তথ্য মোতাবেক আহতদের একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের (১৫-১৬) শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আমিরুল ইসলাম এবং অন্যজন একই শিক্ষাবর্ষের আইন অনুষদের শিক্ষার্থী ইয়াছিন আরাফাত।
এ ঘটনায় বুধবার সকালেও ক্যাম্পাসে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এতে ছাত্রলীগের আরো এক কর্মী আহত হয়। তবে তার নাম জানা যায়নি। এ বিষয়ে সিএফসি গ্রুপের সিনিয়র নেতা জামান নূর বলেন, তারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে আমাদের এক কর্মীর উপর হামলা চালায়। সেখান থেকে ঘটনার সূত্রপাত ঘটে। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠ বিচার চাই। অপরদিকে সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা মনছুর আলম বলেন, ক্যা¤পাসের পরিবেশ নষ্ট করার জন্য তারা আমাদের উপর হামলা চালায়। আমরা প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

 

 

 

 

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আকতারুজ্জামান বলেন, মঙ্গলবার গভীর রাত পর্যন্ত দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ ঘটে। বুধবার সকালেও হাতাহাতির পর পুলিশ অবস্থান নিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এই সংঘর্ষে দুই ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়ে মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসা নিয়েছে।