প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ  বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের উদ্দেশে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরউল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, আপনি লন্ডনে বসে স্কাইপিতে কথা বলবেন ঠিক আছে। তবে সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে বসেন। তা না হলে ভুলভ্রান্তি হবে। আপনি ভবিষ্যতের প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীদের ধৈর্য ধরতে হবে। রিজভীর মাধ্যমে মিটিং না করে সিনিয়র নেতাদের ডাকেন। আপনি আরেকজন রিজভী হয়ে যাবেন না।

শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা ছিলেন। বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদের আয়োজনে এই মানববন্ধন হয়।খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদকে রাজপথকে নামার আহ্বান জানিয়ে জাফরউল্লাহ চৌধুরী বলেন, আগামীতে প্রত্যেক দিন মিছিল করেন। রাস্তায় থাকেন। ব্যারিস্টার মওদুদ-মোশাররফ হোসেন রাস্তায় আসেন।

 

 

 

 

তিনি বলেন, বিএনপি আজকে যদি চায়, আজ বিকালে এখানে ১ হাজার মহিলার জমায়েত হতে পারে। সবাই রাস্তায় বসে থাকেন। এরপরও কিছু না হলে রাস্তায় বসে খোদার কাছে মোনাজাত ধরেন। একদিন বিএনপি। আরেকদিন ছাত্রদল, তারপর যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল-এভাবে টানা ১৭ দিন মাঠে থাকেন। খালেদা জিয়ার মুক্তি অবশ্যই হবে।

 

 

 

 

 

 

ঐক্যফ্রন্ট করে বিএনপি আরও লাভবান হয়েছে বলেও মন্তব্য করে জাফরউল্লাহ চৌধুরী বলেন, ঐক্যফ্রন্ট বিএনপিকে নতুন জীবন দিয়েছে। ঐক্যফ্রন্ট না হলে তারা রাস্তায় বের হতো পারতো না। ড. কামাল হোসেন সব ধরণের চেষ্টা করেছেন। তবে হাসিনা কথার বরখেলাপ করেছেন। তিনি কোনো কথা রাখেননি। হাসিনাকে বিশ্বাস করেছিলাম আমরা। ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন গিয়ে ২০১৪ সালে খালেদা জিয়ার সিদ্ধান্ত যে সত্য ছিল তা প্রমাণিত হয়েছে। এটাতে বিএনপি লাভবান হয়েছে।