প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ   বেগম খালেদা জিয়ার কারাবরণের বর্ষপূর্তির দিন বিএনপির বেশ ক’জন নেতা একটি ই-মেইল পেয়েছেন। লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া বিএনপির অন্তত ৮ জন সিনিয়র নেতাকে এই ই-মেইল পাঠিয়েছেন। ই-মেইলে বলা হয়েছে ‘হয় কাজ করুন, নইলে পদ ছাড়ুন’ বিএনপির একাধিক সিনিয়র নেতা ই-মেইল প্রাপ্তির কথা স্বীকার করেছেন। এপর্যন্ত বিএনপির যে সব নেতা এই মেইল পেয়েছেন, তাদের মধ্যে রয়েছেন লে: জেনারেল (অব:) মাহাবুবুর রহমান, ড: খন্দকার মোশারফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ড: আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাস, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া এবং গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

চিঠিতে ‘প্রিয় মহোদয়’ বলে সম্বোধন করা হয়েছে। চিঠির শুরুতেই বিএনপির ঐতিহ্য এবং এদেশের মানুষের কাছে বিএপির জনপ্রিয়তার প্রসঙ্গ আনা হয়েছে। ই-মেইলে বলা হয়েছে ‘এদেশের জনগণের আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটেছে বিএনপিতে।’ ই-মেইলে বিএনপির জন্মের প্রেক্ষাপট ব্যাখা করা হয়েছে। এদেশের মানুষের গণতন্ত্র সহ নানা অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিএনপি কিভাবে কাজ করেছে, তারও ব্যাখা দেয়া হয়েছে। এরপর এসেছে ওয়ান-ইলেভেন প্রসঙ্গ। ই-মেইলে ওয়ান-ইলেভেনকে ‘জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ধ্বংসের আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে আওয়ামী লীগের যৌথ চক্রান্ত’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ই-মেইলে দাবী করা হয়েছে যে, ‘বিএনপিকে ধ্বংসের যে নীলনক্সা ওয়ান ইলেভেনে প্রণয়ন করা হয়েছিল, সেই নীলনক্সার বাস্তবায়ন করে চলেছে বর্তমান সরকার। ই-মেইলে বেগম জিয়ার কারাবরণ, ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন প্রসঙ্গ এসেছে। তাতে সরকারের সমালোচনার পাশাপাশি এসেছে বিএনপির ব্যর্থতার কথাও। বিএনপি অপশক্তিকে রুখে দিতে পারেনি বলেও মন্তব্য করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

ই-মেইলে দলের নেতাদের অতীত ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছে। বলা হয়েছে ‘আপনাদের ত্যাগ এবং পরিশ্রমের কারণেই বিএনপি বিপুল জনপ্রিয় রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে টিকে আছে।’ ই-মেইলে বর্তমান সময়কে কঠিন সময় হিসেবে চিহ্নিত করে দেশের জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের কথা বলা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে ‘আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই।’ আর আন্দোলনের তিন ধাপের প্রথম ধাপে সাংগঠনিক পূণঃবিন্যাস, দ্বিতীয় ধাপে জনসংযোগ এবং তৃতীয় ধাপে সর্বাত্মক আন্দোলনের কথা বলা হয়েছে। এজন্য নেতাদের বিভ্রান্ত এবং হতাশ না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে বলা হয়েছে ‘হয় কাজ করুন, না হলে পদ ছাড়ুন।’

 

 

 

 

 

বিএনপির একাধিক শীর্ষ নেতা মনে করছেন, তারেক জিয়া যে দল পুনঃগঠন করতে যাচ্ছন এই ই-মেইল সম্ভবত তারই বার্তা। আগামী দুই একদিনের মধ্যে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম সিঙ্গাপুর থেকে লন্ডনে পৌঁছাবেন। সেখান দলের নতুন নেতৃত্বের ব্যাপারে তারেক তার পরিকল্পনা জানাবেন বলে জানা গেছে। যদিও বিএনপির মধ্যে ইতিমধ্যেই তারেক জিয়াকে আপততঃ দলের নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেয়ার পক্ষে মত তৈরি হয়েছে। তার পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবেই তারেকের এই ই-মেইল বলে মনে করছেন বিএনপির অনেক শীর্ষ নেতা।

সূত্র-  বাংলা ইনসাইডার