প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ  সৌদি আরবে মাত্র ৬ বছর বয়সী একটি শিশুকে শিরশ্ছেদ করার অভিযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে তার মার সামনে। এ সময় তিনি বার বার মুর্ছা যাচ্ছিলেন। কিন্তু কেউ তাদের সহায়তায় এগিয়ে যায় নি।

 

 

 

 

 

বৃটিশ একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে এ খবর দেয়া হয়েছে। তবে এ বিষয়ে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষের কোনো বক্তব্য দেয়া হয নি। রিপোর্টে বলা হয়, পবিত্র শহর মদিনায় একটি পবিত্র স্থাপনা পরিদর্শন করছিলেন ওই মা ও তার ৬ বছর বয়সী ছেলে। এ সময় কিছু লোক তাদের কাছে জানতে চায় তারা শিয়া মুসলিম কিনা।

 

 

 

 

জবাবে ওই মা হ্যাঁ বলেন। এর কয়েক মিনিট পরে একটি গাড়ি আসে। তাদের পাশে এসে থামে। এ সময় ওই মায়ের কাছ থেকে তার ছেলেকে ছিনিয়ে নেয় কিছু মানুষ। মার কাছ থেকে তাকে ছিনিয়ে নিয়ে ভাঙা কাচ দিয়ে তার কাঁধের ওপর উপর্যুপরি কোপাতে থাকে তারা। এতে এক পর্যায়ে ওই শিশুটির মাথা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ভয়াবহ ওই দৃশ্য প্রত্যক্ষ করতে হয় ওই মাকে।

 

 

 

 

এ সময় তিনি বার বার আর্তনাদ করতে করতে মুর্ছা যাচ্ছিলেন। কিন্তু কেউ তাদের সহায়তায় এগিয়ে আসে নি। ওই রিপোর্টে আরো বলা হয়, সৌদি আরবে প্রাধান্য বিস্তার করে আছে সুন্নিরা। তারা মোট জনসংখ্যার চার ভাগের তিনভাগ। মানবাধিকার বিষয়ক গুরুপ বলছে, অন্য মতে বিশ^াসীরা, যেমন শিয়ারা সেখানে নির্যাতনের শিকার।

 

 

 

 

ওয়াশিংটন ভিত্তিক শিয়া রাইটস ওয়াচ বলছে, শিয়াদের বিরুদ্ধে নির্যাতন হওয়া সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত কোনো হস্তক্ষেপ নেই। কর্তৃপক্ষও এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয় নি। ওই শিশুটির পিতামাতার শোকের সঙ্গে একই সঙ্গে শোক প্রকাশ করছে সৌদি আরবের শিয়া সম্প্রদায়। সৌদি আরবে শিয়া জনগণ কিভাবে নির্যাতনের শিকার তা এই ঘটনার মধ্য দিয়ে ফুটে ওঠে। সেনাবাহিনীর দমনপীড়নের অধীনে রয়েছেন শিয়ারা। অনেক শিয়া জেলে রয়েছেন। অনেকে রয়েছেন মৃত্যু পরোয়ানা নিয়ে।