প্রথমবার্তা,স্টাফ রিপোর্টার, ঝালকাঠি : ঝালকাঠিতে অবৈধ অস্ত্র ও গুলি রাখার দায়ে মো. হারুন মীর (৪০) নামে এক ব্যক্তিকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে ঝালকাঠির বিশেষ ট্রাইব্যুনাল ৩ এর বিচারক মো. সাইফুল আলম এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আদালতে আসামী উপস্থিতি ছিলেন।

 

 

 

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১২ সালের ২৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় বরিশাল র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান র‌্যাব-৮ এর একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নলছিটি উপজেলার ভরতকাঠি গ্রামে হারুন মিরের বসত ঘর থেকে একটি ২২ ভোরের ওয়ান সুটারগান ও ২০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে। এই ঘটনায় র‌্যাবের ডিএডি মো. শামছুল আলম বাদী হয়ে নলছিটি থানায় মামলা দায়ের করে। এ মামলায় কালু গাজী নামের অপর একজনকে এজাহারভুক্ত আসামী করা হলেও তদন্তে পুলিশ তাঁর বিরুদ্ধে কোন সাক্ষ্য প্রমাণ না পাওয়ায় অভিযোগপত্র থেকে অব্যাহতি প্রদান করে।

 

 

 

 

 

সাজাপ্রাপ্ত হারুন মীর নলছিটি উপজেলার ভরতকাঠী গ্রামের মোসলেম মীরের ছেলে। এদিকে ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ১ম আদালত রহিম ডাকুয়া নামে এক ব্যক্তিকে দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। একই সঙ্গে তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। আদালতের বিচারক রুবাইয়া আমিনা আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

 

 

 

 

 

 

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৯ জুলাই বিকেল ৪ টায় ঝালকাঠি সদর উপজেলার পিপলিতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে জমিনিয়ে বিরোধের জেরে একই এলাকার খালেদা বেগমকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। এই ঘটনায় খালেদা বেগম বাদী হয়ে ঝালকাঠি থানায় মামলা দায়ের করেন। সাজাপ্রাপ্ত রহিম ডাকুয়া দক্ষিণ পিপলিতা গ্রামের কাদের ডাকুয়ার ছেলে।