প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ  ভাগ্য ভীষণ খারাপ ইয়ামি গৌতমের। জানেন তো তার ক্যারিয়ারে কি কি সিনেমা আছে? ‘ভিকি ডোনার’ থেকে বলিউডে পথচলা শুরু। সুপারহিট ছবি ‘ভিকি ডোনার’ থেকে স্টার বনে যান আয়ুশ্মান খুরানা। অথচ তার সঙ্গে কোন অংশে কম ছিলেন না ইয়ামি।কিন্তু আয়ুস্মানের তুলনায় অনেকটাই আড়ালে ছিলেন তিনি। এরপর করলেন ‘অ্যাকশন জ্যাকসন’, ‘বদলাপুর’র মতো সিনেমা। দুটি সিনেমাই ব্যাবসাসফল। তবে সেখানে ইয়ামির কোন কৃতিত্ব নেই। খুব অল্প সময়ের জন্য ছিল তার উপস্থিতি। কিন্তু তবুও তো তিনি ব্যবসাসফল সিনেমার অংশ। মাঝে ‘সনম রে’, ‘জুননিয়ত’ এর মতো মাঝারি মানের সিনেমায় অভিনয় করেন।

 

 

 

 

 

তবে সেসব সিনেমা একদম হতাশ করেনি। ‘কাবিল’ ছবির মাধ্যমে তিনি ফের ফিরেছেন। হৃত্বিকের ছবিটি সুপারহিট। কিন্তু সেখানে নাম নেই ইয়ামির। ২০১৭ সালে কাবিলের পর ২০১৮ সালে অভিনয় করলেন ‘বাত্তি গুল মিটার চালু’ ছবিতে। সে ছবিও হিট হয়েছে। তবে মানুষতো বলে ছবিটি শাহেদ কাপুর ও শ্রদ্ধা কাপুরের। এ বছরের প্রথম সিনেমা ‘উড়ি- দ্যা সার্জিকাল স্ট্রাইক’ ছবিতেও তিনি অভিনয় করেছেন।

 

 

 

 

 

 

তবে সিনেমার নায়ক যতটা না প্রশংসা পেয়েছেন। নায়িকা হিসেবে তার ছিটেফোটাও পায়নি ইয়ামি। একেই বলে আনলাকি ইয়ামি। বরাবরই তার অভিনয় প্রশংসিত হয়েছে। বড় বাজেটের সিনেমাতে অভিনয়ও করেছেন। কিন্তু নিজের ক্যারিয়ারটা স্টাবলিশড আর করা হলো না।

 

 

 

 

 

 

বাবা পরিচালক মুকেশ গৌতম। নিজ জীবনে অনেকটা সফল হলেও মেয়ের ক্ষেত্রটি বাবার মতো নয়। বাবা পরিচালক হওয়ার সুবাদে ছোটবেলা থেকে মিডিয়ার ছায়াতেই অনেকটা বেড়ে উঠেছেন তিনি। শুরুর দিকে ভারতীয় টেলিভিশনে, চান্দ কে পার চালো (২০০৮), রাজকুমার আরিয়ান (২০০৮), উয়ে পেয়ার না হোগা কাম (২০০৯) এবং মীথি চোরি নাম্বার ওয়ান (২০১০) ইত্যাদি ধারাবাহিকে অভিনয় করেছেন তিনি। তবে কখনোই অভিনয় করে আলোচনায় আসতে পারেননি ইয়ামি।