প্রথমবার্তা,দিনাজপুর) প্রতিনিধি: চিরিরবন্দর বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিজস্ব জমি জোর পূর্বক দখল করার পাঁয়তাড়া করছে বেলতলী বাজারের ক্ষুদ্রব্যবসায়ী মোঃ আব্দুল মজিদ আর তাকে ইন্ধন দিচ্ছে ঐ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও,এফ,এম মোর্শেদুল আলম এমনটি অভিযোগ করেছেন বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ ও বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোছাঃ মাহবুবা আকতার নীলা।

 

 

 

 

 

 

প্রধান শিক্ষিকা মোছা: মাহবুবা আকতার নীলা জানান, বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিজস্ব জমি ৮৬ শতক, তন্মধ্যে, বিদ্যালয়ের মুল ভবন ও শিশুদের ছোট খেলার মাঠ ছাড়া বাকি অংশ দীর্ঘদিন ধরে জোর পূর্বক দিনাজপুর-পার্বতীপুর সড়ক সংলগ্ন বিদ্যালয়ের জমি কতিপয় ব্যক্তিরা বাহুর জোরে সরকারি জায়গায় দোকান ঘর বানিয়ে দিব্বিচে ব্যবসা করছে বিনা ভাড়ায়। এতে বিদ্যালয়ে ছাত্র/ছাত্রীদের পকেট গেট দিয়ে যেমন প্রবেশ করতে হয় তেমনি বিদ্যালয়ের জমি বে-আইনি ভাবে সরকারি সম্পত্তি জোর পূর্বক ভোগদখল করছে।

 

 

 

 

 

বিদ্যালয়ের মুলগেট তো নাই বরং বিদ্যালয়ের সৌন্দর্য্য হানি সহ আর্থিক ভাবেও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বিদ্যালয়টি। বিদ্যালয়ের সভাপতি ও,এফ,এম মোশের্দুল আলম অজ্ঞাত কারনে দোকানদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন না করে বরং তাদের পক্ষ নিয়ে চোরাই পকেট মোটাতাজাকরনের প্রক্রিয়ায় ব্যস্ত বলে তাদের ব্যাপারে টু-শব্দটিও করেননা বর্তমান সভাপতি। শুধু তাই নয়, ‘বেড়া যে ক্ষেত খায়’ তার জলন্ত প্রমাণ সভাপতি ও,এফ,এম মোর্শেদুল আলম।

 

 

 

 

 

বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দক্ষিনাংশে ১২ শতাংশ জমি যার দাগ নং- ২৪৫৬, খতিয়ান নং- ৪১১, মৌজা: নান্দেড়াই জমিটি উন্মুক্ত পড়ে থাকায় বেলতলী বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মোঃ আব্দুল মজিদ সভাপতি ও,এফ,এম মোর্শেদুল আলমকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে মোটা টাকার বিনিময়ে বিদ্যালয়ের জায়গা দখল করে রাস্তা নেয়ার পায়তাড়া করছে বলে বেলতলী বাজারের বাসিন্দারা জানান এবং ও,এফ,এম মোশের্দুল আলমকে সভাপতির পদ হতে অপসারনের দাবী জানান।

 

 

 

 

 

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের নিজস্ব জমিতে আব্দুল মজিদ জোর পূর্বক মাটি ভরাট করলে বেলতলী সরকারি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোছা: মাহবুবা আকতার নীলা বাদী হতে গত ২১-০১-২০১৯ খ্রী: চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম রব্বানী বরাবর দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দরখাস্ত দিলে সভাপতি ও,এফ,এম মোশের্দুল আলম ক্ষিপ্ত হয়ে প্রধান শিক্ষিকাকে একহাত দেখে নিবেন বলে প্রকাশ্যে শাসায়।

 

 

 

 

জোর পূর্বক সরকারি সম্পত্তি গ্রাসের জন্য মাটি ভরাট করে রাস্তা নেয়ার ব্যাপারে আব্দুল মজিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাসায় থেকেও বের না হওয়ায় আব্দুল মজিদের ছেলে মোঃ আতাউর রহমান জানান, সভাপতির হুকুমে আমরা রাস্তা নির্মাণ করছি। সব ঝামেলা নাকি সে সামলায়ে নিতে পারবে কোন সমস্যা হবে না।

 

 

 

 

 

ঘটনার বিষয়ে বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও,এফ,এম মোর্শেদুল আলম এর সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার কোন মন্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।