প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:   জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে করা মামলায় আরও চারজন সাক্ষ্য দিয়েছেন। মঙ্গলবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬ এ তারা সাক্ষ্য দেন। পরে বিচারক ড. শেখ গোলাম মাহবুব আগামী ৫ মে পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেন।

 

 

 

 

মঙ্গলবার আদালতে সাক্ষ্য দেন সাউথইস্ট ব্যাংকের ধানমন্ডি শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার আবদুর রাজ্জাক, কর পরিদর্শক ইউসুফ আলী, কর অফিসের উচ্চমান সহকারী ইব্রাহিম ও অফিস সহকারী মোকাদ্দেস আহমেদ। তাদের জেরা করেন আসামি পক্ষের আইনজীবীরা। এ নিয়ে ১৯ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে।

 

 

 

 

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ৩ জুলাই ব্যারিস্টার মওদুদকে তার নিজের,  স্ত্রীর ও পোষ্যদের নামে-বেনামে অর্জিত যাবতীয় স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ এবং তার উৎস জানতে চেয়ে নোটিশ দেয় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কারাগারে থাকা অবস্থায় একই বছরের ২৩ জুলাই সম্পদের হিসাববিবরণী দাখিল করেন মওদুদ।

 

 

 

 

 

পরে দুদক অনুসন্ধান করে জানতে পারে, মওদুদের দাখিল করা হিসাববিবরণীতে জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়, এমন সাত কোটি ৩৮ লাখ ৬৪ হাজার ২৮৭ টাকা মূল্যের সম্পদ অর্জনসহ চার কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৩৭৫ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেছেন।

 

 

 

 

 

একই বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক শরিফুল হক সিদ্দিকী বাদী হয়ে রাজধানীর গুলশান থানায় মওদুদের বিরুদ্ধে দুদক আইনে মামলা দায়ের করেন। ২০০৮ সালের ১৪ মে তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক। ২০১৭ সালের ২১ জুন মওদুদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত।