প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সাক্ষ্য দিলেন চার পুলিশ সদস্য। আজ সোমবার ঢাকার সন্ত্রাস বিরোধী ট্রাইব্যুনালে তারা সাক্ষ্য দেন।

 

 

 

 

যারা সাক্ষ্য দিয়েছেন তারা হলেন বনানী থানার তৎকালীন পরিদর্শক (তদন্ত) ওয়াহিদুজ্জামান, ভাটারা থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) ফারুক হোসেন, একই থানার সহকারী উপ পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) সোহাগ হোসেন ও কনস্টেবল প্রদীপ চন্দ্র দাস।

 

 

 

 

 

হলি আর্টিজানে সন্ত্রাসী হামলার খবর পেয়ে তারা সেখানে ছুটে যান। পুরো ঘটনার সময় ঘটনাস্থলে তারা উপস্থিত ছিলেন। ঘটনার পরেও তারা হলি আর্টজানে ছিলেন বলে আদালতকে বলেন। ঘটনার সময় সন্ত্রাসী জঙ্গি হামলায় পুলিশ কর্মকর্তা ওয়াহিদুজ্জামান ও ফারুক হোসেন আহত হন। তারা গুরুতর আহত হওয়ায় ফারুক হোসেনকে  উন্নত চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ডে নেওয়া হয়। সেখান থেকে চিকিৎসা শেষে চারমাস পওে তিনি দেশে ফেরেন।

 

 

 

 

 

পুলিশ সদস্যরা বিস্তারিত জানান ট্রাইব্যুনালকে। তাদের জাবনবন্দি শেষে আসামি পক্ষে তাদের জেরা করা হয়। পরে বিচারক মো. মজিবুর রহমান পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেন। এই মামলায় মোট ২১১ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ৪০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ সমাপ্ত হলো।

 

 

 

 

 

গত বছর ২৬ নভেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহতম জঙ্গি হামলার মামলার বিচার শুরু হয়। এর আগে গত ২৩ জুলাই এই মামলায় আট জীবিত জঙ্গিকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দেওয়া হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হাসনাত করিমের জঙ্গি হামলায় জড়িত থাকার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট না পাওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সুপারিশ করেন চার্জশিটে।

 

 

 

 

২০১৬ সালের ১ জুলাই রাত পৌনে নয়টার সময় হলি আর্টিজান বেকারিতে অতর্কিতে আক্রমন করে পাঁচ জঙ্গি। তারা ভেতরে থাকা সবাইকে জিম্মি করে। একে একে গুলি চালিয়ে, কুপিয়ে ১৭ বিদেশি ও তিনজন বাংলাদেশিকে হত্যা করে।  সেখানে তাৎক্ষনিক অভিযান চালাতে যায় র‌্যাব ও পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা।

 

 

 

 

 

অভিযানকারীদের দিকে বোমা হামলা চালায় ওই পাঁচ জঙ্গি। এতে দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন। আহত হন র‌্যাব-১ এর তৎকালীন অধিনায়ক লে. কর্ণেল তুহিন মাসুদ, পুলিশের গুলশান অঞ্চলের অতিরিক্ত উপ কমিশনার আবদুল আহাদসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বেশ কয়েকজন সদস্য।