প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:    মসজিদে প্রাণঘাতী বোমা হামলার কারণে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ থাকলেও ভারতীয় লোকসভা নির্বাচনে অনায়াসে জয়ী হয়েছেন সংঘাতপ্রিয় হিন্দু জাতীয়তাবাদী সন্ন্যাসিনী প্রজ্ঞা ঠাকুর।-খবর এএফপিরভারতের স্বাধীনতার নায়ক মহাত্মাগান্ধীর হত্যাকাণ্ড উদযাপন করায় সপ্তাহখানেক আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তার নিন্দা জানিয়েছেন।২০০৮ সালে একটি হামলায় অভিযুক্ত প্রজ্ঞা ঠাকুর। ওই হামলায় অন্তত ছয় ব্যক্তি নিহত ও শতাধিক আহত হন।

 

 

 

 

 

 

সন্ত্রাসবাদের অভিযোগে ৯ বছর কারাবন্দি ছিলেন তিনি। তার বিরুদ্ধে মামলার বিচার এখনও চলছে। ২০১৭ সাল থেকে তিনি জামিনে রয়েছেন।মোদির হিন্দুত্ববাদী ভারতীয় জনতা পার্টির এই প্রার্থী এবার লোকসভা নির্বাচনে বড় জয় হাতিয়ে নিয়েছেন। ভোপালের নিজের আসন থেকে ৬২ শতাংশ ভোট পেয়েছেন ৪৯ বছর বয়সী এই কট্টরপন্থী সন্ন্যাসিনী।গত এপ্রিলে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন ঠাকুর। পরের মাসে যখন তাকে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করা হয়, তখন সেই খবরে দলের অনেকেই অবাক বনে গিয়েছিলেন।

 

 

 

 

 

নির্বাচনের পুরো প্রচারজুড়ে বিতর্ক তার পিছু ছাড়েনি। মহাত্মা গান্ধীকে হত্যাকারী উগ্র মৌলবাদী আততায়ীকে দেশপ্রেমিক হিসেবে আখ্যায়িত করেন তিনি।গোমূত্র পানে নিজের ক্যান্সার ভালো হয়ে যাওয়ার দাবি করে সবার চোখ কপালে তুলেছেন তিনি।এবারের নির্বাচনে শোচনীয় ভরাডুবি হয়েছে বিরোধী দল কংগ্রেসের। দলটি মোদির শাসনামলে উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের বাড়বাড়ন্তের প্রতীক হিসেবে আখ্যায়িত করেন তাকে।

 

 

 

 

 

 

তবে তার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগকে ভুয়া বলে আখ্যায়িত করেছেন ভারতীয় জনতা পার্টির প্রধান অমিত শাহ।পুলিশ বলছে, ২০০৮ সালে হামলায় তার মোটরবাইকে বিস্ফোরক বহন করা হয়েছে। এ ছাড়া হামলা পরিকল্পনায় তার সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল।