প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সাম্প্রতিক জাপান, সৌদি আরব এবং ফিনল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সফরকে অত্যন্ত সফল ও ফলপ্রসু বলে অভিহিত করে বলেছেন, সার্বিক বিবেচনায় এবারের আমার জাপান, সৌদি আরব এবং ফিনল্যান্ড এই ত্রিদেশীয় সফর অত্যন্ত ফলপ্রসু হয়েছে।

 

 

 

 

 

আজ রবিবার বিকেলে তার সরকারি বাসভবন গণভবনে সাম্প্রতিক ১১ দিনের ত্রিদেশীয় সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তৃতায় একথা বলেন। তিনি ২৮ মে থেকে ৭ জুন পর্যন্ত জাপান, সৌদি আরব এবং ফিনল্যান্ড সফর শেষে গতকাল শনিবার দেশে ফেরেন।

 

 

 

 

 

প্রধানমন্ত্রী তার জাপান সফর নিয়ে বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করায় প্রধানমন্ত্রী আবে আমাকে অভিনন্দন জানান। তিনি বাংলাদেশ ও জাপানের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

 

 

 

 

 

শেখ হাসিনা বলেন, মিয়ানমার থেকে আগত বাস্তচ্যূত রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা প্রদানের জন্য শিনজো আবে তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়ে রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবিলায় বাংলাদেশকে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

 

 

 

 

 

জাপানের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, শিনজো আবে বলেছেন ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশের মধ্যম আয়ের দেশে উন্নত হওয়ার পথে এবং ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে জাপান বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

 

 

 

 

ঢাকায় হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ৭ জন জাপানী নাগরিকের জন্য জাপানের প্রধানমন্ত্রীর কাছে গভীর দুঃখ প্রকাশ করেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রী আবেকে জানাই যে বাংলাদেশ সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস চরমপন্থার প্রতি ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অনুসরণ করে।এই বৈশ্বিক সমস্যা মোকাবিলায় তিনি জাপানের মত বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্রের সঙ্গে একযোগে কাজ করারও প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

 

 

 

 

 

রোহিঙ্গাদের নিয়ে তিনি বলেন, সম্মেলনে এশিয়ার পক্ষ থেকে আমি বক্তব্য দিয়েছি। এতে জঙ্গিবাদ ও রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা করি। ভালোভাবে তুলে ধরি এসব বিষয়। মুসলিম দেশগুলোর শিক্ষার্থীদের কারিগরি শিক্ষার বিষয়েও কথা হয়।

 

 

 

 

 

এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগামী জুলাইয়ে চীনে যেতে পারি। আশা করি তখন রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা হবে। সবাই চায় রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফেরত যাক। কিন্তু মিয়ানমারের সাড়াটা পাই না। তারাই আগ্রহী নয়।

 

 

 

 

 

 

উল্লেখ্য, গত ২৮ মে জাপান দিয়ে ত্রিদেশীয় এই সফর শুরু করেন শেখ হাসিনা। পরে সেখান থেকে সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড যান তিনি। সফরে তৃতীয় ও শেষ দেশ ফিনল্যান্ড থেকে শনিবার সকালে দেশে পৌঁছান তিনি।