প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের বাসিন্দা ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এরশাদুল হক চয়ন হত্যা মামলায় তিনজনকে ফাঁসি ও সাতজনকে যাবজ্জীবন করাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় কিশোরগঞ্জের প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম এ রায় দেন।মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- হোসেনপুরের সিদলা গ্রামের আবদুল আউয়াল, আল আমিন ও সুফল মিয়া।

 

এ তিনজনের মধ্যে আল আমিন ছাড়া অন্য দুজন পলাতক করয়েছেন। আর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন-সিদলা গ্রামের আব্দুল করিম, সাফিয়া খাতুন, আব্দুল কাদির, সোহেল মিয়া, রিপা আক্তার, জহুরা খাতুন ও আব্দুর রউফ ফকির। এদের মধ্যে সোহেল পলাতক রয়েছে।

 

আদালত সূত্র জানিয়েছে, পূর্ব শত্রুতা ও জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ২০০৫ সালের ২ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলার সিদলা ইউনিয়নের টান সিদলা গ্রামের জহিরুল ইসলাম রতনের ছেলে এরশাদুল ইসলাম চয়নকে হত্যা করে আসামিরা। এ ঘটনায় ওইদিন নিহতের বাবা বাদী হয়ে হোসেনপুর থানায় ১১ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। দীর্ঘ ১৪ বছর পর মামলাটির এ রায় ঘোষণা করা হয়।

 

আসামিদের মধ্যে একজন এরই মধ্যে মারা গেছেন।মামলার বাদী চয়নের বাবা জহিরুল ইসলাম রতন এ রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। তিনি জানান, তার ছেলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করত। সে বাংলাদেশ রেলওয়েতে একটি চাকরি পেয়েছিল। ২০০৫ সালের ১ তারিখে বাড়ি আসে সে।

 

পরদিন দুপুরে প্রতিপক্ষের লোকজন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তার মা ও বোনকে বাড়ির সামনে মারধর করতে থাকে। তাদের ডাকচিৎকার শুনে ঘর থেকে বের হলে তাকেও নৃশংসভাবে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। পরে হোসেনপুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।