প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:২০ দলীয় জোট অখণ্ড রেখেই নতুন আরেকটি মঞ্চ বা ফ্রন্টের ঘোষণা দিতে পারেন এলডিপির সভাপতি ড. অলি আহমদ। আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক অনুষ্ঠানে তাঁর এমন ঘোষণা দেওয়ার কথা রয়েছে। অলির নেতৃত্বে নতুন ওই ফ্রন্টে ২০ দলের শরিক জামায়াতে ইসলামী ও কল্যাণ পার্টিসহ কয়েকটি দলের যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে রাত ৮টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ওই ফ্রন্টে যোগদান বিষয়ে জামায়াত দোটানায় রয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। যদিও আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে তারা অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারে।

 

 

এদিকে বিএনপি ওই উদ্যোগের কথা জেনেও কৌশলগত কারণে নিশ্চুপ রয়েছে। তারা অলি আহমদের ‘নতুন ফ্রন্টের’ আত্মপ্রকাশ দেখেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে। তবে জামায়াতকে নিয়ে অলি আহমদের এমন উদ্যোগ কোনদিকে মোড় নেয় তা দেখার অপেক্ষায় থাকবে বিএনপি। দলটির হাইকমান্ড মনে করে, অলি আহমদ জামায়াতকে নিয়ে গেলে বরং ভালোই হয়। বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথমবার্তাকে বলেন, ‘অলি আহমদ জামায়াতকে নিয়ে গেলে মিলাদ পড়াব। আমাদের কাঁধের বোঝা নেমে যাবে।’

 

 

জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রথমবার্তাকে বলেন , ‘অলি আহমদ সাহেবের সংবাদ সম্মেলনের বিষয়ে কিছু জানি না। তিনি কী বলেন আগে দেখি!’

 

 

অলি আহমদ কী করছেন তা জানার জন্য গত শুক্রবার ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান তাঁর বাসায় গিয়েছিলেন। অলি আহমদ তাঁকে বলেছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নতুন নির্বাচনের কথা বলতেই তিনি সংবাদ সম্মেলন করছেন। তিনি নজরুল ইসলাম খানকেও ওই সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানান। অলি আহমদ এ সময় নজরুল ইসলাম খানকে আরো বলেন, রমজানের আগে একটি বৈঠকে বিএনপিই বলেছে, ‘আপনারা যে যেখানে পারেন কাজ করেন।’ গতকাল বুধবার অলি আহমদ প্রথমবার্তাকে বলেন, ‘বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলন তারই অংশ।’ তিনি এও বলেন, ‘এলডিপি এবং আমরা সবাই ২০ দলীয় জোটে আছি।’

 

 

তবে তাঁর দল এলডিপির দায়িত্বশীল অন্তত তিনজন নেতা গতকাল প্রথমবার্তাকে নিশ্চিত করেন, একটি পৃথক ফ্রন্ট বা মঞ্চের ঘোষণাই দেওয়া হচ্ছে কাল। এ প্রসঙ্গে তাঁরা বলেন, ২০ দলীয় জোট অখণ্ড রেখে বিএনপি যেমন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করেছে; অলি আহমদও তেমনি পৃথক ফ্রন্ট গঠন করার কথা বলছেন। বিএনপি পারলে তিনি পারবেন না কেন? পৃথকভাবে প্রায় একই ধরনের কথা বলেন এলডিপি, জামায়াত ও কল্যাণ পার্টির অন্তত তিনজন নেতা। তবে তাঁরা নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি।

 

 

যদিও জামায়াতকে নিয়ে পৃথক ফ্রন্ট করার ব্যাপারে এলডিপির বড় একটি অংশের মধ্যেই আপত্তি আছে বলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে। তারা বলছে, যুদ্ধকালেই বীরবিক্রম খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল (অব.) অলি আহমদের জামায়াতের সঙ্গে কোনো ধরনের ফ্রন্ট গঠন সমীচীন নয়। কারণ তিনি সারা জীবনই জামায়াতবিরোধী রাজনীতি করে এসেছেন। ওই অংশটি কয়েক দিন ধরেই জামায়াতকে নিয়ে কোনো নতুন উদ্যোগে না যাওয়ার জন্য অলি আহমদকে পরামর্শ দিয়েছে বলে জানা যায়।

 

 

ওই অংশের গুরুত্বপূর্ণ তিনজন নেতা প্রথমবার্তাকে  নিশ্চিত করেছেন যে জামায়াতের সঙ্গে কোনো ফ্রন্ট হলে তাঁরা বিএনপির সঙ্গেই থেকে যাবেন, নয়তো পৃথক অবস্থান নেবেন। তাঁরা জানান, জামায়াতকে নিয়ে অলি আহমদের নতুন রাজনৈতিক অবস্থানের বিষয়ে দলীয় ফোরামে কোনো আলোচনাও হয়নি। এলডিপির মধ্যে এ মুহূর্তে প্রচণ্ড অস্বস্তি রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে এলডিপিই ভাঙনের মুখে পড়বে বলে মনে করছেন তাঁরা।

 

 

বিএনপির বাইরে পৃথক রাজনৈতিক অবস্থান নেওয়ার উদ্যোগের মধ্যেই গতকাল এলডিপির তিনজন প্রেসিডিয়াম সদস্য পদত্যাগ করেছেন। তাঁরা হলেন আবদুল করিম আব্বাসী, আবদুল গনি ও মো. আবদুল্লাহ।

 

 

জানতে চাইলে অলি আহমদ গতকাল প্রথমবার্তাকে বলেন, ‘আমি সবাইকে সারপ্রাইজ দেব। তবে কাল (আজ) কী ঘোষণা হবে সেটি না বলাই ভালো।’ জামায়াতের সঙ্গে এক মঞ্চে এসে কাজ করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কার সঙ্গে ফ্রন্ট হবে সে বিষয়ে এখনো চিন্তা করিনি। ২০ দলের সবাইকে দাওয়াত দিয়েছি। আগে দেখি কারা আসে।’

 

 

এলডিপির ভাঙনের আশঙ্কা আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সেটা আল্লাহ রাব্বুল আলামিন জানেন।’এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ প্রথমবার্তাকে বলেন, ‘দলীয় ফোরামে আলোচনা না হওয়ায় সংবাদ সম্মেলনে কী হবে তা জানি না। আগে দেখি কী হয়! তবে বিএনপি যেহেতু ২০ দলীয় জোট অক্ষুণ্ন রেখেই পৃথক একটি ফ্রন্ট করেছে, ফলে এখানেও করতে অসুবিধা নেই।’

 

 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলাম। আগে দেখি কাদের নিয়ে ফ্রন্ট ঘোষণা হয়। তারপর সিদ্ধান্ত নেব।’

জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান প্রথমবার্তাকে  বলেন, ‘অন্য অনেক কর্মসূচির মতো ২০ দলীয় জোটের শরিক হিসেবে এলডিপি আমন্ত্রণ জানিয়েছে। বিষয়টিকে আমরা অত সিরিয়াসলি নিচ্ছি না।’ তিনি বলেন, ‘২০ দল থাকতেই ইতিমধ্যে ঐক্যফ্রন্ট নামে একটি জোট গঠিত হয়েছে। সুতরাং মহৎ উদ্দেশ্যে অলি আহমদ সাহেব আরেকটি করলে অসুবিধা কোথায়?’

 

 

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম প্রথমবার্তাকে বলেন, অলি আহমদের সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ পেয়েছি। যাব। এর চেয়ে বেশি কিছু জানি না।