প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত ইসমাইল হোসেন (২১) নামের এক যুবক ভর্তি হয়েছেন। সে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বালিয়াপাড়া গ্রামের মৃত ইদ্রিস আলীর ছেলে। কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসক পরীক্ষা শেষে তাঁকে ডেঙ্গু রোগী হিসেবে শনাক্ত করেন। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে আক্রান্ত ইসমাইলের চিকিৎসা চলছে। চিকিৎসকদের ধারণা, ডেঙ্গু রোগের জীবাণু বহনকারী এডিস মশা কুষ্টিয়ায় আছে।

 

 

এদিকে জ্বর নিয়ে ইসমাইলের মা সালমা খাতুনও একই হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। চিকিৎসকেরা তাঁর মায়েরও পরীক্ষা করানোর নির্দেশ দিয়েছেন।কুষ্টিয়ায় আক্রান্ত ইসমাইল হোসেনকে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের দুই নম্বর পুরুষ ওয়ার্ডে ভর্তি করানো হয়েছে। পাশেই নারী ওয়ার্ডে তাঁর মাকে ভর্তি করা হয়েছে।

 

 

কুষ্টিয়ার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন আবদুল মোমেন বলেন, বাইরে থেকে আক্রান্ত হয়ে কুষ্টিয়ায় চিকিৎসা নেওয়ার রোগী এর আগে পাওয়া গেছে। কিন্তু কুষ্টিয়ায় এই প্রথম ডেঙ্গু রোগী পাওয়া গেল।এর আগে জুন মাসে ঢাকার বাইরে প্রথম চট্টগ্রামের মা ও শিশু হাসপাতালে একজন এবং মাদারীপুর ও ময়মনসিংহে ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছিল।

 

 

ইসমাইল হোসেন জানান, কুষ্টিয়া শহরের বড় বাজার এলাকায় পুরোনো আলিয়া মাদ্রাসার ছাত্র। একই সঙ্গে বালিয়াপাড়া গ্রামে শাহি মসজিদের ইমাম। গ্রামের বাড়িতেই মায়ের সঙ্গে থাকেন। গত কয়েক মাসের মধ্যে তিনি জেলার বাইরে যাননি। নয় দিন আগে জ্বরে আক্রান্ত হয়। গ্রামের পল্লি চিকিৎসকের কাছেই আমি প্রথমে চিকিৎসা নি। জ্বরের মাত্রা বেড়ে গেলে গত রোববার হাসপাতালে ভর্তি হয়।

 

 

ইসমাইল হোসেনের প্রতিবেশী তৌহিদুল ইসলাম বলেন, গত সোমবার শহরের একটি বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রক্ত পরীক্ষা করানো হয়। গতকাল মঙ্গলবার প্রতিবেদন পেয়ে চিকিৎসক তাঁকে ডেঙ্গু রোগী হিসেবে শনাক্ত করেন। ইসমাইলের মা সালমা খাতুন তিন দিন আগে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

 

 

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ এ এস এম মুসা কবির বলেন, ইসমাইল ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে। তাঁর মায়েরও পরীক্ষা করতে দেওয়া হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, কুষ্টিয়ায় এডিস মশা আছে।