প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:চলতি বিশ্বকাপের মিশন শেষ করে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ দল। সেমিফাইনালের স্বপ্ন অপূর্ণ রেখেই ফিরে আসতে হয়েছে টাইগার বাহিনীকে। বিশ্বকাপের মিশন শেষেই অবসর নেওয়ার কথা ছিল টাইগার বাহিনীর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার।

 

 

তবে এবারের বিশ্বকাপ তার শেষ বিশ্বকাপ হলেও এখনই অবসর নেওয়ার চিন্তা ভাবনা নেই এই দলনেতার। সম্প্রতি প্রশ্ন উঠেছে অধিনায়ক মাশরাফির পরে কে হবেন দল নেতা?

 

 

চলতি বিশ্বকাপে ইনজুরির কারনে মাশরাফির পারফর্ম খুব একটা ভালো করতে পারেননি। অপর দিকে সাকিব দুর্দান্ত পারফর্ম করে রেকর্ড গরেছেন। দলনেতা ভালো খেলতে না পারলেও কিন্তু তার প্রশংসা করে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, মাশরাফি খেলোয়াড় হিসেবে দলে আসেনি। কিন্তু আপনি যদি অধিনায়ক নিয়ে বলেন, তাহলে আমরা তার মতো দলনেতা খুঁজে পাইনি। আমি এটা সবসময়ই বলি। খেলোয়াড় হিসেবে সাকিব আর অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফির কোনো বিকল্প নেই বাংলাদেশ দলে।

 

 

মাশরাফির বিদায় নিয়ে প্রশ্ন করলে বিসিবি প্রধান বলেন, আমরা চেষ্টা করবো তার বিদায়টা যতো ভালোভাবে করা যায়। সবচেয়ে ভালো হয় যদি আমরা এটা নিজেদের মাটিতে করতে পারি। আমরা নিজেদের দেশে মাশরাফির একটি বিদায়ী ম্যাচ ভালোভাবে করতে চাই। কারন তাকে তার যথাযথ সম্মানটা দেওয়া দরকার। আমরা সবাই জানি মাশরাফি আমাদের দলটির জন্য কি করেছেন। তিনি সব সময় চেষ্টা করে গেছেন নিজের সেরাটা দিয়ে দলকে জেতাতে।

 

 

সব সময় ভাল পারফর্ম করেনি মাশরাফি। কিন্তু তার আন্তরিকতা আর লড়াকু মনোভাবের কোন কমতি ছিলনা। সে সব সম শেষ পর্যন্ত লড়াই করে গেছে। যাতে দলতে জেতানো যায়। এমন নিবেদিত প্রান ক্রিকেটার পাওয়া আসলেই দুস্কর। তাই তাকে নিয়ে আমরা পরিকল্পনা করছি কিভাবে তার বিদায়টা স্মরণীয় করে রাখা যায়।

 

 

সেই সাথে তিনি আর বলেন এটা ঠিক মাশরাফি চলে গেলে সে শূণ্যতা দেখা দেবে সেটা পূরণ করা কঠিন হবে। তাই বলছি সত্যিকার অর্থে মাশরাফি সাকিবের বিকল্প খুঁজে পাওয়াটা বেশ কঠিন। তবে বেশীরভাগ মানুষই ভাবছেন মাশরাফি বিদায় নেওয়ার পর সাকিবই হতে পারেন পরবর্তী দলনেতা। তাই এখন সবাই অধীর আগ্রহ নিয়ে আছেন বাংলাদেশ দলের নতু অধিনায়ককে দেখার জন্য।