এরকম অনেক দম্পতি রয়েছেন, যাদের একজন হয়তো অন্ধ তবে অন্যজনের দৃষ্টিশক্তি রয়েছে। আবার অনেক দম্পতির একজন শারীরিকভাবে অক্ষম হওয়া সত্ত্বেও তারা দিব্যি সংসার জীবন পার করে দেন।কিন্তু এবার নতুন এক ধরনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

 

 

 

 

 

চলাচলে অক্ষম এক নারী এমন একজনের সঙ্গে জোট বেঁধে ভ্রমণে বের হয়েছেন, যিনি চোখেই দেখেন না। অথচ তারা মনের জোরে দিব্যি পার হয়ে যাচ্ছেন দুর্গম পথ। একপর্যায়ে তারা পর্বতারোহণে বেরিয়েছেন।

 

 

 

 

 

ম্যালানি নেচট জন্ম থেকেই প্রতিবন্ধী। সে কারণে তিনি কখনোই হাঁটতে পারেন না। বাড়ির মধ্যে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যাওয়ার ক্ষেত্রে হুইলচেয়ারে চেপে বসতে হয় তাকে।

 

 

 

 

 

অন্যদিকে ট্রেভর হাহন বছর পাঁচেক আগে দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলেছেন। তারা দু’জনেই যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডোর ফোর্ট  কলিন্সে বসবাস করেন। বক্সিং ক্লাসে তাদের প্রথম সাক্ষাৎ হয়। এর কিছুদিন পর রক ক্লিমবিং ক্লাসে আবারো সাক্ষাৎ ঘটে।

 

 

 

 

 

ম্যালানির সারাজীবনের ইচ্ছা বাইরে ঘুরে বেড়াবেন। বাইরে যাওয়ার জন্য মুখিয়ে ছিলেন ট্রেভরও। পরে তারা সিদ্ধান্ত নেন ট্রেভরের পিঠে চেপে বাইরে ঘুরবেন ম্যালানি। আর ম্যালানি তাকে পথ দেখাবেন। সে অনুযায়ী তারা ভ্রমণে বের হয়েছেন।

 

 

 

 

 

প্রথমে অল্প কিছু জায়গা ঘুরলেও পরের মাসে বের হন পর্বত আরোহণে। ম্যালানি বলেন, তার পা আছে আর আমার আছে চোখ। দু’জন মিলে আমরা স্বপ্ন পূরণ করছি।

 

 

 

 

 

ট্রেভর বলেছেন, অন্যের সারাজীবনের স্বপ্ন পূরণ করতে পেরে ভালো লেগেছে। আর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি তার কাছে, যার জন্য দৃষ্টি হারিয়েও আমাকে থেমে যেতে হয়নি। নিজের ইচ্ছা পূরণের মধ্য দিয়ে অন্যকে খুশি করতে পারার চেয়ে উৎকৃষ্ট আর কিইবা হতে পারে।