প্রথমবার্তা স্পোর্টস ডেস্ক : হুট করে পাওয়া হ্যামস্ট্রিং চোটে মাঠের বাইরে ছিটকে পড়তে হয়েছে জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে।

 

 

 

শ্রীলঙ্কা সফরের উদ্দেশে দেশ ছাড়ার আগমুহূর্তে পাওয়া এই চোটে তিনি খেলা থেকে আপাতত দূরে। তার এই চোট নিয়ে বেশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

 

 

 

 

সোমবার (২৯ জুলাই) মাশরাফির চোট প্রসঙ্গ নিয়ে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন বিসিবি চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী।

 

 

 

 

 

এ সময় তিনি জানান, মাশরাফির হ্যামস্ট্রিং চোট নিকট অতীতে আগেও একবার হয়েছিল। তাই নতুন করে পুরনো চোটের সংযোগ হওয়ায় সেরে উঠতে লাগছে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময়।

 

 

 

 

 

উল্লেখ্য, সর্বশেষ বিশ্বকাপেও হ্যামস্ট্রিং চোট নিয়ে খেলেছিলেন মাশরাফি। শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার আগের দিন অধিনায়ক হিসেবে সংবাদ সম্মেলনও করেন। এরপরই জানা যায় তার চোটের কথা।

 

 

 

দেবাশীষ মনে করেন, আগের ব্যথা পাওয়া জায়গায় নতুন করে চোট পাওয়ায় সেরে উঠতে বেশি সময় লাগছে ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত এই ক্রিকেটারের। তিনি বলেন, ‘শ্রীলঙ্কা সফরের আগে মাশরাফি হ্যামস্ট্রিংয়ের ইনজুরিতে পড়ে।

 

 

 

 

আমরা প্রাথমিকভাবে তার স্ক্যান করাই এবং তাতে গ্রেড ওয়ান মাসল ইনজুরি ধরা পড়ে। সাধারণত এ ধরনের ইনজুরিতে দুই-তিন সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে হয়। কিন্তু আমরা ধারণা করছি রি-ইনজুরি অর্থাৎ এখানে এর আগেও ব্যথা পেয়েছিল। ফলে পুরোপুরি ফিট হতে দ্বিগুণ সময় লাগবে।’

 

 

 

 

পুরো সুস্থ হওয়ার আগে আবারো একই চোট পেলে লম্বা সময়ের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হবে মাশরাফিকে। তাই তাকে নিয়ে কোনো ঝুঁকি নিতে চান না দেবাশীষ।

 

 

 

মাশরাফির ফেরার দিনক্ষণের অনুমান করে তিনি বলেন, ‘এই ইনজুরি যদি আবার হয় তাহলে পুরো মৌসুমটা মাঠের বাহিরে থাকতে হতে পারে। সে জন্যই আমরা বেশি সর্তক। আশা করছি আগামী আগষ্ট মাসের শেষে দিকে মাশরাফি পুরো ফিট হয়ে ফিরবে।’