প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:   ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইন রাজ্যে হত্যাযজ্ঞ ও নিপীড়নের শিকার হয়ে সীমান্ত পেরিয়ে কক্সবাজারের উখিয়া টেকনাফে রোহিঙ্গাদের ঢল নামে। তখন মানবতার খাতিরে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছিলে বাংলাদেশ সরকার।

 

 

 

 

কিন্তু দুই বছর পার হলেও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন দুই দফায় উদ্যোগ নিয়েও শুরু করা যায়নি। মিয়ানমার সরকারের অসহযোগিতায় প্রত্যাবাসন করা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ বাংলাদেশ সরকারের।

 

 

 

বর্তমানে উখিয়া ও টেকনাফের ৩২ টি ক্যাম্পে প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গার বসতি। নতুন পুরাতন মিলে তাদের সাথে যোগ হয়েছে গত দুই বছরে জন্ম নেওয়া ৯১ হাজার শিশু।ইউএনএইচসিআরের জনসংখ্যা বিষয়ক রিপোর্টে এ তথ্য উঠে এসেছে।

 

 

 

 

 

সংস্থাটি জানায়, রোহিঙ্গাদের মধ্যে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণের সংখ্যাও কম। নেই কোনো আগ্রহ। এক একটি পরিবারে সদস্য সংখ্যা গড়ে ১০ থেকে ১৫ জনের মত।

 

 

 

 

 

 

ইউএনএইচসিআরের জনসংখ্যা বিষয়ক রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন কার্যালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার শামসুদ্দোজা নয়ন গণমাধ্যমকে জানান, গত ২ বছরে ৩২টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৯১ হাজার শিশুর জন্ম হয়েছে।

 

 

 

 

তারমধ্যে ১ বছরের নিচে রয়েছে ৩১ হাজার শিশু। আর দু বছরের নিচে রয়েছে ৬০ হাজার শিশু। জনসংখ্যা রোধ করতে ক্যাম্প গুলোতে নানা কার্যক্রম চলছে বলেও জানান তিনি।