প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:  শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জে ১১ ছাত্রীর চুল কেটে দেয়ার দায়ে প্রধান শিক্ষিকা কাবেরি গোপকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে ঢাকা বিভাগীয় উপ-পরিচালক তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। শরীয়তপুর জেলা প্রথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

 

 

 

ভেদরগঞ্জ উপজেলার ২৯ নং ডিএমখালী বোর্ড সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার নির্দেশে গত বৃহস্পতিবার স্কুলের দপ্তরী জুমান ৫ম শ্রেনীর ১১ ছাত্রীর চুল কেটে দেয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন শিক্ষার্থীদের স্বজনরা। এ বিষয়টি নিয়ে রোববার বিভিন্ন গণমাধ্যম সংবাদ প্রকাশ হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিস্তর সমালোচনা চলতে থাকে।

 

 

 

 

চুল কাটার এ ঘটনা তদন্তে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ একটি কমিটি গঠন করেন। উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার মশিউল আজম হিরক ও মো. গোলাম মোস্তফা মিয়াকে ঘটনা তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশে দেন। সরেজমিনে তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় তারা মঙ্গলবার জেলা প্রথমিক শিক্ষা কর্মাকর্তার কাছে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। মঙ্গলবার জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে সুপারিশসহ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন ঢাকা বিভাগীয় উপ-পরিচালকের কাছে। তারই ধারাবাহিকতায় বুধবার তাকে সাময়িত বরখাস্ত করা হয়।

 

 

 

 

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘বুধবার দুপুরে অভিযুক্ত শিক্ষিকাকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ সম্বলিত পত্র পেয়েছি। সাথে সাথে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছি।’