6 / 100 SEO Score

প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:   অনেক ধরণের কনডম বাজারে রয়েছে। তবে বেশিরভাগ মানুষ কনডম বলতে পুরুষের ব্যবহৃত জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি বোঝেন। নারীরাও কনডম ব্যবহার করে থাকেন।পুরুষেরা তাদের যৌনাঙ্গে কনডম ব্যবহার করে। সরু নালীর মত পাতলা এ আবরণ পুরুষাঙ্গকে ঢেকে ফেলে।

 

 

 

 

তবে নারীদের জন্য নতুন ধরণের কনডম বাজারে এসেছে। এই কনডম মেয়েরা তাদের যোনিনালীতে ব্যবহার করে। যোনিনালীর ভেতরে এই কনডম সংযুক্ত করা হয়।

 

 

 

 

বাজারে বিভিন্ন ধরণের নারীদের কনডম পাওয়া যায়। তার মধ্যে এফএস-২ নামের কনডমটি ২০০৯ সালে ইউএস ফুড এন্ড ড্রাগ অ্যডমিনিস্ট্রেশন অনুমোদন দেয়।

 

 

 

 

এফসি ও এফসি-২ দুই ধরণের কনডম রয়েছে। এফসি-২ নারী কনডম নাইট্রাইল আবরণযুক্ত। ৬.৫ ইঞ্চি (১৭সেমি) লম্বা এ কনডমে একট নমনীয় রিং ভেতরের প্রান্তে থাকে। এ প্রান্তটি যোনিনালীর মধ্যে প্রবেশ করানো হয়। অন্য প্রান্তটি যোনি মুখের বাইরে থাকে। এই রিং সঙ্গমকালীন নিরাপত্তা দিয়ে থাকে। এ সময় এই রিঙের কারণে কনডমটি বেরিয়ে আসে না।

 

 

 

 

 

এ কনডমের অনেক কুফল রয়েছে। সঙ্গমের সময় অসহনীয় শব্দ করে। আর এ সময়ের ঘর্ষণ নারীদের কাছে অপছন্দনীয়। এ কনডম প্রবেশকালে বেশিরভাগ মেয়ে ব্যাথা পায়।এ কনডম অনেক ব্যয়বহুল। তাই সব দেশে এ কনডমের ‌ব্যবহার নেই।