6 / 100 SEO Score

প্রথমবার্তা, রিপোর্ট:   ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের সহযোগী যুবলীগ ঢাকা দক্ষিণের সহসভাপতি এনামুল হক আরমানকে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইং সারোয়ার বিন কাশেম।

 

 

 

 

রোববার কাকরাইলে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের মিডিয়া উইং বলেন, আমরা গত ১৮ সেপ্টেম্বর থেকেই ক্যাসিনো অভিযান শুরু করি। আজ সেই অভিযানের ১৯তম দিন। এই অভিযানে একটি নাম বারবারই উঠে এসেছিল।

 

 

 

 

 

 

তিনি বলেন, ইসমাইল হোসেন সম্রাটকে খুঁজতে একটি গোয়েন্দা টিম গঠন করা হয়েছিল। আমরা আজ ভোরে সম্রাট ও তার সহযোগী আরমানকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে গ্রেফতার করি। আরমানকে মদ্যপ অবস্থায় গ্রেফতার করা হয়। মদপান করার কারণে আরমানকে কুমিল্লার আদালতে ৬ মাসের সাজা দেয়া হয়েছে।

 

 

 

 

 

গোয়েন্দা সূত্রে জানা যায়, সম্রাটের অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসা যেসব যুবলীগ নেতা পরিচালনা করতেন, তার মধ্যে আরমান ছিলেন অন্যতম। সম্রাটের পরেই ক্যাসিনোবাণিজ্যে তার নাম উচ্চারিত হতো। ক্যাসিনোবাণিজ্যে আরমানকে ‘গুরু’ বলে মানতেন সম্রাট।

 

 

 

 

 

আরমানের উত্থানটা ঘটে রাজধানীর বায়তুল মোকাররম এলাকা থেকে। নোয়াখালী থেকে ঢাকায় এসে বায়তুল মোকাররমে লাগেজ বিক্রি করতেন তিনি। এর মধ্যেই খালেদা জিয়ার নিকটাত্মীয় ‘বাউন্ডারি ইকবাল’ হিসেবে পরিচিত ইকবাল হোসেনের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা বাড়ে।

 

 

 

 

 

 

ইকবালের মাধ্যমে হাওয়া ভবনে যাতায়াত শুরু করেন আরমান। সেই সময় ক্ষমতায় থাকা বিএনপির ছত্রছায়ায় মতিঝিল ক্লাবপাড়ায় প্রভাবশালী হয়ে ওঠেন তিনি। সেই প্রভাব খাটিয়ে বিএনপি আমলেই ফকিরাপুলের কয়েকটি ক্লাবের ক্যাসিনোর নিয়ন্ত্রণ নেন আরমান।

 

 

 

 

 

এরপর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে যুবলীগে যোগ দেন আরমান। সম্রাটের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা শুরু করেন। সম্রাটকে মতিঝিল ক্লাবপাড়ার ক্যাসিনোবাণিজ্যে প্রবেশ করান তিনি।