প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :কথায় বলে, মেয়েদের বুক ফাটে তো মুখ ফোটে না৷ আমাদের পিতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় কারণেই যে এ কথার জন্ম তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই৷কিন্তু সত্যিই কি তাই? সত্যিই কি মুখ ফোটে না? নাকি মুখ ফুটতে চাইলেও তা ফুটতে দেওয়া হয় না! বা সে কথায় কান দেওয়া হয় না৷ এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গেলেই জানা যাবে মহিলাদের যৌন ইচ্ছা সম্পর্কিত বেশ কিছু ভুল তথ্য পুরুষের মনে গেঁথে থাকে৷

 

 

 

 

১. মহিলাদের থেকে পুরুষরাই যৌনতা বেশি পছন্দ করে: যৌনতার ক্ষেত্রে পুরুষদের ইচ্ছেপূরণের খাতিরে মহিলাদের যৌনতা অবদমিত করে রাখা থেকেই এ ধারণার জন্ম৷ হয়ত মহিলাদের যৌনতার ক্ষেত্রে বেশি গুরুত্ব না দেওয়ার কারণে কিংবা যৌনতার ক্ষেত্রে তাদের চেপে রাখার কারণেই এ কথার প্রচলন হয়েছে৷ যৌবনের গোড়া থেকেই তাই পুরুষরা যৌনতার দিকে ঝুঁকে থাকে বেশি৷

 

 

 

 

 

মহিলারা যেন এ ব্যাপারে নিজেদের একটু আড়াল করেন৷ আসলে টেস্টোস্টেরন হরমোনের কারণে পুরুষের যৌনতার ইচ্ছে একটু বেশিই হয়৷ মহিলারা আবেগপ্রবণ হওয়ায় যৌনতার ক্ষেত্রে তাঁদের প্রতিক্রিয়া শারীরিক হয় না সবসময়৷ কিন্তু সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, যৌনতার ইচ্ছেয় কিন্তু সত্যিই মহিলারা কম যান না৷ যৌনতার ক্ষেত্রে যতটা মনে করা হয় মহিলারা তার থেকেও বেশি আগ্রহী বলেই প্রমাণ পেয়েছেন সমীক্ষকরা৷

 

 

 

 

 

 

২. মহিলাদের ভাবনায় যৌনতা কম : যৌনতা তো সারাক্ষণ পুরুষদের মাথায় ঘোরে-এরকম একটা চলতি ভাবনা আছে৷ কিন্তু বিভিন্ন প্রশ্নের ভিত্তিতে নারী ও পুরুষের মধ্যে সমীক্ষা চালিয়ে দেখ গেছে, এ ধারণা সঠিক নয়৷ বরং পুরুষরা গড়পরতা যতবার যৌনতা নিয়ে চিন্তা করেন, নারীরা চিন্তা করেন তার থেকেও বেশিবার৷ সুতরাং এ ধারণা এখন থেকে বদলাতেই পারেন পুরুষরা৷

 

 

 

 

 

 

৩. মহিলারা পর্নোগ্রাফি পছন্দ করেন না : পুরুষদের মতো মহিলারাও যে পর্নোগ্রাফি পছন্দ করেন এ আর নতুন কোনও তথ্য নয়৷ কিন্তু অনেকেই মনে করেন, পুরুষরাই বোধহয় হটকে পর্নোগ্রাফি দেখেন৷ মহিলাদের এসব না-পসন্দ৷ কিন্তু এ ধারণা সত্যি নয়৷ বরং হোমোসেক্সুয়াল পর্ন বা পশুদের সঙ্গে মানুষের পর্নোগ্রাফিও যে মহিলাদের পছন্দ তা বিভিন্ন পর্ন সাইটের সেকশনের ভিজিটর ডেটা থেকেই স্পষ্ট৷ দুনিয়ার বিখ্যাত পর্নসাইটের তথ্য অনুযায়ী, পৃথিবীতে লেসবিয়ান পর্ন মহিলারাই দেখেন বেশি

 

 

 

 

 

৪. নারীরা মূলত মনোগ্যামি : নারীরা সঙ্গমের ক্ষেত্রে এক পুরুষেই আস্থা রাখেন৷ সমাজের দীর্ঘ লালিত এ এক ধারণা৷ এখানেও খানিকটা পুরুষতান্ত্রিক সমাজের চাপিয়ে দেওয়া ধারণা কাজ করে৷ কিন্তু ব্যাপারটা সত্যি নয়৷ মার্কিনমুলুকের সেন্সাস ব্যুরো এক সমীক্ষায় জানিয়েছিল, বেশিরভাগ নারী বিবাহ প্রথা অস্বীকার করছেন ও বাচ্চার জন্ম দিতে নারাজ৷

 

 

 

 

যৌনতার ক্ষেত্রে এক মনোগ্যামি হওয়ার প্রশ্নই তাই নেই৷ দেশভেদে এ ধারণার রদবদল হতে পারে, তবে খুব বেশি পাল্টায় না৷ তবে হ্যাঁ, একাধিক পুরুষের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন সব নারী করতে চান না৷ এ নিয়ে তাঁরা যে মাত্রাতিরিক্ত আগ্রহী এমনটাও নয়৷ তবে এ জিনিস তারা যে একদম চান না, তা ভাবলে কিন্তু ভুল হবে৷

 

 

 

 

 

৫. মহিলারা যৌন ভাবনা নিয়ে অপরাধবোধে ভুগে: পুরুষরা নিজেদের যৌন ভাবনা নিয়ে কোনও অপরাধবোধে ভোগে না, মহিলারা ভোগে-এমন কথা শোনা যায়৷ কথাটি আংশিক সত্যি৷

 

 

 

 

 

 

সাম্প্রতিক সমীক্ষা জানাচ্ছে, পুরুষরাই নিজেদের যৌন ভাবনা নিয়ে অপরাধবোধে ভোগেন বেশি৷ নারীর ক্ষেত্রে তা হয় না৷ কেন না নারীরা নিজেদের যৌন ইচ্ছেকে খুব সহজে বশে আনতে পারেন৷ তবে যৌনতার ক্ষেত্রে তাদের প্রকাশ কিন্তু অন্যভাবে৷ আর তাই নিজেদের ‘সেক্সি’ দেখানোর চেষ্টা করেন মহিলারা৷

 

 

 

 

 

 

আসলে সমাজের চলতে থাকা নিয়মে অনেক কিছু ধারণার জন্ম হয়৷ কিন্তু মানুষের মন এক গহন সমুদ্র৷ প্রতিটি মানুষের ক্ষেত্রে তা আবার আলাদা৷ তাই যৌনতার মতো এক জটিল জিনিসকে নিয়মের নিগড়ে বেঁধে না রাখাই ভাল৷ ভুল ধারণা ছেড়ে যৌনতাকে যত খোলখুলি গ্রহণ করা যায়, ততোই মঙ্গল৷