প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :  জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র, ছাত্রলীগকর্মী জুবায়ের আহমেদ হত্যা মামলার রায় আগামী ২৩ জানুয়ারি। বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করবেন।

নিম্ন আদালতে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিদের করা আপিল এবং নিম্ন আদালত থেকে পাঠানো ডেথ রেফারেন্সের ওপর গতকাল মঙ্গলবার শুনানি শেষে রায়ের দিন ধার্য করেছেন হাইকোর্ট। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল জাহিদ সারোয়ার কাজল ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল নির্মল কুমার দাস।
জুবায়ের হত্যা মামলার বিচার শেষে ঢাকার ৪ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল ২০১৫ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি রায় দেন। রায়ে পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ছয়জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। আর দুজনকে খালাস দেওয়া হয়।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়ারা হলো প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের আশিকুল ইসলাম, খান মোহাম্মদ রইছ ও জাহিদ হাসান, দর্শন বিভাগের রাশেদুল ইসলাম রাজু এবং সরকার ও রাজনীতি বিভাগের মাহবুব আকরাম। এদের মধ্যে রাশেদুল ইসলাম ছাড়া অন্য চারজন পলাতক।

যাবজ্জীবন সাজা পাওয়ারা হলো পরিসংখ্যান বিভাগের শফিউল আলম সেতু ও অভিনন্দন কুণ্ডু অভি, দর্শন বিভাগের কামরুজ্জামান সোহাগ ও ইশতিয়াক মেহবুব অরূপ, ইতিহাস বিভাগের মাজহারুল ইসলাম এবং অনুবিজ্ঞান বিভাগের নাজমুস সাকিব তপু। এদের মধ্যে অরূপ পলাতক। অন্যরা কারাগারে।

২০১২ সালের ৮ জানুয়ারি ছাত্রলীগের কোন্দলে প্রতিপক্ষের লোকজন জুবায়েরকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। প্রথমে সাভারের এনাম মেডিক্যাল হাসপাতাল এবং পরে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হলে পরদিন ৯ জানুয়ারি তিনি মারা যান। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই সময়কার রেজিস্ট্রার হামিদুর রহমান বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।