প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:  সন্দেহে আমাদের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। কখনও কি ভেবে দেখেছেন সারা জীবনে মানুষ ঠিক কতবার মেলামেশা করতে পারে বা করার ক্ষমতা রাখে? এ প্রশ্নকে উপজীব্য করেই পরিচালিত হয়েছে গবেষণা। গবেষণায় বের হওয়া তথ্যের সাথে নিজের বা পাশের বন্ধুর যৌন জীবনের ভবিষ্যৎ নির্ণয় করতে পারেন।সম্প্রতি এক গবেষণায় প্রায় ২ হাজার নারী এবং পুরুষকে মিলন জীবন নিয়ে জরিপ করা হয়। জরিপে অংশগ্রহণকারীরা গবেষকদের সামনে তাদের মিলনের সঠিক তথ্যাদি প্রকাশ করেন। যুক্তরাজ্যে করা এই গবেষণা থেকে চমকপ্রদ সব তথ্য বেরিয়ে এসেছে।গবেষণায় পাওয়া তথ্য অনুযায়ী,সপ্তাহে গড়ে পাঁচ জনে একজন মানুষ একবার মিলন করেন। মাত্র তিন শতাংশ মানুষ প্রতিদিন মেলামেশা করে যুক্তরাজ্যের নাগরিকরা সারা জীবনে গড়ে ৫,৭৭৮ বার মিলন করে থাকেন।

 

 

 

 

১৬ বছর থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত সারা জীবনে মানুষ মিলনের জন্য ২,৮০৮ ঘন্টা ব্যয় করে যা পুরো জীবনের ০.৪৫ শতাংশ সময়। এটি পুরো জীবনের মাত্র ১১৭টি দিনের সমান।লজ্জা নয় জানতে হবে: কতটা নিরাপদ? রাতে বক্ষবন্ধনী পরে ঘুমানো?স্তনের সুন্দর আকৃতি দিতেই নারী বক্ষবন্ধনী বা ব্রা পড়ে থাকেন। বয়ঃসন্ধির সময়কাল থেকেই মেয়েরা ব্রা পড়তে শুরু করে দেয়। এব্যপারে, অনেকের মনে একটা ভুল ধারণা আছে। তা হল- ব্রা নারীদের স্তন ক্যান্সারের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। বলা হয়, ব্রা স্তনের টিস্যুগুলোকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। আরেকটি প্রশ্ন প্রায়ই নারীরা চিকিৎসকের কাছে করে থাকেন।

 

 

 

 

তা হলো, ব্রা পরে ঘুমানো কী স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর? এর জবাব দিয়েছেন নিউ ইয়র্কের এনওয়াইইউ ল্যাঙ্গন মেডিক্যাল সেন্টার-এর ব্রেস্ট ক্যান্সার সার্জারি মাল্টিডিসিপ্লিনারি ফেলোশিপ-এর পরিচালক আম্বার গাথ। তিনি বলেন, অনেকেই নানা ব্যাখ্যা দিয়ে ব্রা পরে না ঘুমাতে বলেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত এমন কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি যা দিয়ে বলা যায় যে, ব্রা স্তনের জন্য ক্ষতিকর বা এটি পরে ঘুমানো উচিৎ নয়।তিনি আরো জানান, মূলত ১৯৯৫ সালে ‘ড্রেসড টু কিল’ নামের বইয়ে বলা হয় যে প্রতিদিন আঁটোসাঁটো ব্রা পরা স্তন ক্যান্সারের অন্যতম কারণ। ব্রা স্তনে রক্ত ও অন্যান্য উপাদান প্রবাহে বাধা সৃষ্টি করে এবং এতে বিষাক্ত উপাদানের উদ্ভব ঘটে। এ সময় থেকেই ব্রা স্তন ক্যান্সারে কারণ বলে গুজব ছড়িয়ে যায়। এসব কারণ উল্লেখ করা হয় বইটিকে। কিন্তু আসলে চিকিৎসাবিজ্ঞান এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে নিরেট তথ্য পায়নি।

 

 

 

 

 

একেবারে নতুন এক গবেষণায় বলা হয়, ব্রা পরার সঙ্গে স্তন ক্যান্সারের কোনো সম্পর্ক নেই। যে সব নারীদের স্তন ক্যান্সার হচ্ছে তাদের ক্যান্সারের সঙ্গে ব্রা পরার কোনো সম্পর্ক পাওয়া যায়নি। এ গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে ‘ক্যান্সার এপিডেমিওলোজি’ জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।ফ্রেড হাচিসন ক্যান্সার রিসার্চ সেন্টার-এর পাবলিক হেলথ সায়েন্স বিভাগের গবেষক লু চেন বলেন, ক্যান্সারের সঙ্গে ব্রা পরার কোনো সম্পর্ক নেই। তবে নারীরা কোন বয়স থেকে ব্রা পরা শুরু করেছেন এবং কী ধরনের ব্রা পরছেন তা বেশ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এদিকে, হাফিংটন পোস্ট-এর ‘ওমেন’ জানায়, ঘুমের সময় ব্রা পরার মধ্যেও কোনো সুবিধা আছে বলেও জানা নেই। আবার পরলেও কোনো সমস্যা নেই।

 

 

 

 

 

তবে নারীদের বয়স, গর্ভাবস্থা ইত্যাদি সময় ব্রা পরা বা না পরা নিয়ে তাদের ব্যক্তিগত ইচ্ছা-অনিচ্ছা থাকতে পারে। তবে যাদের স্তনের আকার বড় তারা রাতে আরামে ঘুমানোর জন্য ব্রা পরতে পারেন। তবে ঘুমানের সময় কিছুটা ঢিলেঢালা ব্রা পরাই ভালো। এতে অস্বস্তি বা চুলকানি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না।