প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ  সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুরছে অদ্ভূত এক কাটা পা। বা বলা চলে, পায়ের কঙ্কাল। নানা জায়গায় নানা ভাবে দেখা যাচ্ছে সেটি। কৌতুহল থেকে তাই হঠাৎ ভাইরাল হওয়া কাটা পা’র রহস্যের সমাধানও হয়ে যায় একসময়। আর তখনই জানা যায় বেদনাকে জয় করে অদ্ভূত আনন্দে মেতে থাকা এক মার্কিন তরুণীর কথা।

 

 

 

 

 

যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমার মেয়ে ক্রিস্টি লোয়াল। ডান পায়ে বিরল ধরণের ক্যান্সার ধরা পড়ার পর চিকিৎসকেরা সেটি কেটে ফেলার সিদ্ধান্ত নেন। এবং তা কেটেও ফেলেন। মাত্র ২৫ বছর বয়সে এমন পরিস্থিতির শিকার ক্রিস্টি তখন এক অদ্ভূত আবদার করেন ডাক্তারদের কাছে।

ক্রিস্টি ডাক্তারদের বলেছিলেন, তার কাটা পায়ের পাতাটি যেন ফেরত দেয়া হয়। অবাক হলেও চিকিৎসকেরা অবশ্য একটি ‘জ্বীবাণুমুক্ত’ ব্যাগে করে সেটি ক্রিস্টিকে দিয়ে দেন। এরপর, সেটি পরিষ্কার করে নিজের কাছে রেখে দেন ক্রিস্টি। এক সময় যখন তা কঙ্কালে পরিণত হলে সেটি নিয়ে ছবি তুলতে শুরু করেন ক্রিস্টি।

 

 

 

 

 

বিভিন্ন ছবিতে কাটা পায়ের সংযোজনের কারণ হিসেবে ক্রিস্টি বলেন, “আমার অত পয়সা নেই, শারীরিক সামর্থ্যও নেই। কাজেই যখনই অভিনব কোন বুদ্ধি মাথায় আসে তখনই ‘পা’টিকে বের করে ছবি তুলে ফেলি।”

তার মতে, রোগাক্রান্ত শরীর নিয়ে সারাক্ষণ মনমরা থাকতে চান না তিনি। তাই তো নিজেকে হাসিখুশি রাখতে এই পন্থা বেছে নিয়েছেন। কখনো কখনো নিজের অবস্থা নিয়ে তামাশাও করেন ক্রিস্টি। ব্যাগে করে সারাক্ষণই নিজের কাটা পা সঙ্গে রাখেন ক্রিস্টি।অবশ্য এখনো ক্যান্সারের সঙ্গ লড়ছেন ক্রিস্টি। রোগটি এখনও পুরোপুরি চলে যায়নি শরীর থেকে। সুস্থ থাকতে প্রতি ৩ মাস পরপর তাকে চেকআপ করাতে হয়।

সুত্রঃ বিবিসি