প্রথমবার্তা,প্রতিবেদকঃ  কত বছর গাছ বাঁচে মরে যাবার আগে? আশেপাশের কোনো প্রবীণ বটগাছের বয়সের ঠিকুজি বের করা গেলে দেড়-দুশো বছরের প্রাচীনত্ব পাওয়া যেতে পারে। তবে উত্তর আমেরিকায় একটি পাইন গাছ আছে যেটির বয়স ৫ হাজার বছরের বেশি।

 

 

 

 

ওই গাছটিকেই এতদিন পর্যন্ত পৃথিবীর সবচেয়ে বয়স্ক গাছ বলে স্বীকৃতি দেওয়া হতো। কিন্তু সম্প্রতি সুইডেনের টালার্না প্রদেশে একটি স্পুস গাছের সন্ধান মিলেছে। যার বয়সের সমীকরণ মেলাতে গেলে আপনার চোখ কপালে উঠতে বাধ্য।

 

 

 

 

ফুলু পর্বতের পাদদেশে ওই গাছটি ঠাঁই বেঁচে আচে ৯,৫৫৮ বছর।২০০৮ সালে সুইডেনের ওমেয়াঁ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিজিক্যাল জিওগ্রাফি বিভাগের অধ্যাপক লিফ কুলমান প্রথম এই গাছটির সন্ধান পান।

 

 

 

 

তিনি সে সময় গাছটির বয়স নির্ণয়ে কার্বন আইসোটোপ (সি-১৪) পরীক্ষা করেন। সেই পরীক্ষাতেই মেলে গাছটির বয়স। সম্প্রতি গবেষণা পত্রিকা ‘জার্নাল ইভলিউশন’-এ স্পুস গাছটিকে পৃথিবীর প্রবীণতম বৃক্ষের স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

বিজ্ঞানীরা বলছেন, স্পুস গাছের একটি কাণ্ড মরে গেলে সঙ্গে সঙ্গে নতুন কাণ্ডের জন্ম হয়। এ ছাড়া শিকড় মাটি ফুঁড়ে মাটির গভীরে চলে যেতে পারে দ্রুত।সুইডেনের ওই এলাকায় ৩০০০, ৫০০০ বছর বয়সী আরও স্পুস গাছের সন্ধান আগেই মিলেছিল।