প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:   সহবাসের ফলে অক্সিটোসিন নামক একপ্রকার কেমিক্যালের ক্ষরণ হয়, এটি এন্ডোরফিনকে বৃদ্ধি করে যার ফলে ব্যথা বিশেষত মাথা ব্যথার পরিমাণ হ্রাস পায়। এছাড়াও সহবাস বিভিন্ন ক্ষততে আরাম দিতেও সক্রিয়, এমনকি ডায়াবেটিক রোগীদের অনমনীয় ক্ষতকেও কমাতে সক্ষম।

 

 

 

 

 

 

অনেক চেষ্টা করেও ওজন কমাতে পারছেন না তো? সহবাস ওজন কমানোর সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পদ্ধতি। গবেষণায় দেখা গেছে, সহবাসের প্রতি ঘন্টায় প্রায় ১৭০ ক্যালোরি পর্যন্ত কমানো যায়।ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সহবাসের জুরি মেলা ভার।

 

 

 

 

 

 

গবেষণায় দেখা গেছে, ২০ বছর বয়সি পুরুষদের ক্ষেত্রে মাসে ৫ বার এবং তুলনামূলক বয়স্কদের ক্ষেত্রে মাসে ২১ বার বীর্যপাত প্রোস্টেট ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়। এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে প্রতিনিয়ত সহবাস স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সক্ষম।

 

 

 

 

 

 

বীর্যে প্রচুর পরিমানে জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম ও অন্যান্য খনিজ বর্তমান। শরীরে বীর্যের শোষণের ফলে এই পদার্থগুলো শরীরে প্রবেশ করে যা দাঁতকে সুস্থ রাখতে সক্ষম। এর ফলে সাদা ও সুস্থ দাঁত খুব সহজেই পাওয়া যায়।