প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:   কোনও মহিলাকে খুব ভাল লাগল। আমরা তখন কী করি! তাকে ভালবাসার কথা জানাই। তারপর সে যদি রাজি হয়, তখন আমরা সম্পর্কটা এগিয়ে নিয়ে যেতে পরিবারের লোকেদের সঙ্গে কথাবার্তা বলি। সব ঠিকঠাক থাকলে তারপর বিয়ের পিঁড়ি, রেজিস্ট্রি অফিস।

 

 

 

 

কিন্তু এসব তো সভ্য দেশের রীতি।আফ্রিকার ইথিওপিয়ায় এসবের বালাই নেই। নাইজেরিয়ার পর আফ্রিকার দ্বিতীয় জনবহুল দেশ ইথিওপিয়ায় বিয়ে হয় মহিলাদের তুলে নিয়ে গিয়ে। সাম্প্রতিক এক সমীক্ষা দেখা গিয়েছে এখনও ইথিওপিয়ায় ৬৯ শতাংশ বিয়ে হয় মহিলাদের জোর করে ধরে নিয়ে গিয়ে।

 

 

 

 

 

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মহিলাদের অনিচ্ছা তো বটেই, শারীরিকবল খাটিয়ে তাদের বিয়ের পিড়িতে বসানো হয়।সেখানে প্রেমের প্রস্তাব, বাড়ির লোকের সম্মতি এসবের বালাই নেই।

 

 

 

 

 

মানে আমাদের এখানে সিনেমায় যেমন দেখানো হয় জমিদারের লোক এসে গ্রামের সুন্দরী মেয়েটাকে তুলে নিয়ে গিয়ে বিয়ে করে, সেটা এখনও ইথিওপিয়াতে হয়। হ্যাঁ, এই ২০১৬ সালে এসেও।