প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:  একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশন আগামীকাল মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় শুরু হবে। এটি হবে চলতি সংসদের প্রথম বাজেট অধিবেশন। অধিবেশনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আগামী ১৩ জুন বৃহস্পতিবার ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করবেন। এ ছাড়া কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ কয়েকটি ইস্যুতে সাধারণ আলোচনা চাইবে বিএনপিদলীয় এমপিরা। অধিবেশনকে সামনে রেখে সংসদ ভবন এলাকায় কঠোর নিরাপত্তাবেষ্টনী গড়ে তোলার পাশাপাশি ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

 

 

 

 

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, সাধারণত জুনের প্রথম সপ্তাহে বাজেট অধিবেশন শুরু হলেও ঈদের ছুটির কারণে এবার একটু দেরিতে শুরু হচ্ছে। তাই এবার প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে আলোচনার জন্য ছুটির দিনেও অধিবেশন বসতে পারে। চলতি সংসদের প্রথম বাজেট অধিবেশনকে সামনে রেখে এরই মধ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে সংসদ সচিবালয়।

 

 

 

 

 

অধিবেশনকে সামনে রেখে সংসদ গ্যালারির সাউন্ড সিস্টেম ঠিক করা হয়েছে। আর অধিবেশন কক্ষের কর্পেট পরিবর্তন করা হয়েছে। চেয়ারগুলো মেরামত করে নতুন করে সাজানো হয়েছে। সংসদের ভেতরে-বাইরে ধুয়ে-মুছে পরিষ্কার করা হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার সংসদের অধিবেশন কক্ষে ডিজিটাল পদ্ধতিতে এই বাজেট প্রস্তাবনা উত্থাপন করা হবে।

 

 

 

 

 

এ দিন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদসহ দেশি-বিদেশি সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। এ জন্য সংসদে প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।

 

 

 

 

সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, চলতি অধিবেশনে বাজেট ছাড়াও অর্থ বিলসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিল পাসের সম্ভাবনা রয়েছে। সংবিধান অনুযায়ী ৩০ জুন নতুন অর্থবছরের বাজেট পাস হবে।

 

 

 

 

নতুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এবার প্রথম বাজেট প্রস্তাবনা করবেন। মন্ত্রী এ বিষয়ে স্পিকারের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। রবিবার দুপুরে তিনি সংসদ ভবনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বৈঠক করেন।

 

 

 

 

এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা শেষে তিনি সংসদের অধিবেশন কক্ষ ঘুরে দেখেন। বৈঠক শেষে স্পিকার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিদের্শনা দেন।

 

 

 

 

 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, বাজেট অধিবেশন সামনে রেখে সংসদ সচিবালয় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে। এবার একটু দেরিতে শুরু হলেও অধিবেশনে বাজেট নিয়ে আলোচনা কম হবে না।

 

 

 

 

সকলেই কথা বলার সুযোগ পাবেন। এই অধিবেশন সাধারণত দীর্ঘ হয়। অধিবেশন শুরুর আগে কার্য-উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে অধিবেশনের মেয়াদ ও কর্মসূচি চূড়ান্ত হবে।

 

 

 

 

 

সূত্র জানায়, বাজেট অধিবেশনকে ঘিরে সংসদ সচিবালয়ের পাশাপাশি প্রস্তুতি শুরু করেছে সরকার ও বিরোধীদলীয় সদস্যরা। আগের সংসদের মতো এবারো বাজেট নিয়ে প্রাণবন্ত আলোচনা করতে চায় বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা।

 

 

 

 

 

তাদের সঙ্গে আবার যোগ হয়েছে বিএনপির ছয়জন ও গণফোরামের দুজন সংসদ সদস্য। বিএনপি সদস্যরা বাজেট ছাড়াও দলীয় চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে আলোচনার দাবি জানাবে।

 

 

 

 

এ ছাড়াও তারা বিএনপিসহ সকল বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার, শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারি ও ব্যাংক লুটসহ নানা ইস্যুতে সাধারণ আলোচনার জন্য এরই মধ্যে সংসদ সচিবালয়ে প্রস্তাব জমা দিয়েছে।

 

 

 

 

 

এ বিষয়ে বিএনপির সংসদীয় দলের নেতা চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৩ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মো. হারুনুর রশীদ প্রথমবার্তাকে বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সময়ের দাবি।

 

 

 

 

তাকে রাজনৈতিক কারণে বন্দি করে রেখেছে। এ জন্য আমি একটি প্রস্তাব জমা দিয়েছি। এ ছাড়া আরো কয়েকটি প্রস্তাব সংসদের সংশ্লিষ্ট শাখা রাখা হয়েছে। ওই বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনার জন্য স্পিকার সুযোগ দেবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

 

 

 

 

 

উল্লেখ্য, একাদশ সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন ৩০ এপ্রিল শেষ হয়। ওই অধিবেশন ২৪ এপ্রিল শুরু হয়ে ৫ কার্য দিবস চলেছিল। যে অধিবেশনে তিনটি সরকারি বিল পাস হয় ও একটি বিল উত্থাপন করা হয়।

 

 

 

 

 

 

এ ছাড়া ওই অধিবেশনে সংসদ কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭ (১) বিধিতে সাধারণ আলোচনা শেষে সন্ত্রাস ও যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ার প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। নির্বাচনের তিন মাস পর শপথ গ্রহণ করে বিএনপির পাঁচজন সংসদ সদস্য ওই অধিবেশনে যোগ দেন।