প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:বাংলায় বলা হয়, ‘কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ’। এটি একটি বাংলা প্রবাদ। আর এই প্রবাদবাক্যটিকে অনেকটাই সত্যি করে দিলেন বার্লিনের এক নাগরিক। মূত্রের বেগ চেপে রাখতে না পেরে ব্রিজে দাঁড়িয়ে নদীর পানিতে মূত্রত্যাগ করতে গিয়ে চারজনেকে হাপাতালে পাঠিয়ে দিলেন তিনি। এই ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার বার্লিন শহরে স্প্রী নদীর ওপর জানোইটজ ব্রিজে।

 

 

অন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, মূত্রের বেগ চেপে রাখতে না পেরে ব্রিজে দাঁড়িয়ে নদীর পানিতে মূত্রত্যাগ করেছেন এক ব্যক্তি। এসময় ব্রিজের নিচ দিয়ে যাচ্ছিলেন পাঁচজন যাত্রীবাহী এক বোট। মূত্র নদীতে না পড়ে সোজা গিয়ে পড়ে পাঁচ যাত্রীর মাথায়। অচেনা ব্যক্তির মূত্র থেকে রক্ষা পেতে পানিতে ঝাঁপ দিতে গিয়ে মাথা ফাটিয়ে রক্তারক্তি কাণ্ড ঘটিয়ে বসেন যাত্রীরা। ব্রিজটি নদীর সঙ্গে একেবারে লাগোয়া। ঝাঁপ দিতে গিয়েই ব্রিজের কোণায় লেগে মাথা ফেটে যায় চার যাত্রীর। আপাতত চারজনেই হাসপাতালে ভর্তি। তিন জনের অবস্থা ভাল কিন্তু একজনের অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক।

 

 

আহত চারজনের মধ্যে তিন জনই নারী। তারা যথাক্রমে ৩৮, ৩৯ ও ৪৮ বছর বয়সী। তাদের সঙ্গে ৫৪ বছর বয়সী এক ব্যক্তিও আহত হয়েছেন। এই ঘটনার পর থেকে স্থানীয় পুলিশ হন্যে হয়ে খুঁজছে ওই ব্যক্তিকে। এখনো তাকে পাওয়া যায়নি।

 

 

পানির খাওয়ার পরে অনেকেরই প্রস্রাবের বেগ পায়। অনেকেই চেপে রাখতে পারেন না। বিশেষ করে রাতের বেলায়। ফলে ঘুম ফেলে রেখে প্রস্রাব করতে যেতে হয় টয়লেটে। তবে আপনি চাইলে কয়েকটি পদ্ধতি অবলম্বন করে প্রস্রাব আটকে রাখতে পারবেন। প্রস্রাবের বেশি বেগ হলে, আপনার মনোযোগ অন্যদিকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন, কিছুক্ষণ এদিক-ওদিক ঘুরাফেরা করেন অথবা সকল প্রকার তরল জাতিয় পানীয় বস্তু এড়িয়ে চলেন।

 

 

মনোযোগ অন্যদিকে নিয়ে যেতে চাইলে গান শুনতে পারেন অথবা অন্য কোনো ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলতে থাকুন।বেশিক্ষণ প্রস্রাব আটকে রাখলে স্বাস্থ্যের পক্ষে অনেক খারপ ফল বয়ে নিয়ে আসতে পারে। চিকিৎসকরাও বলেন, প্রস্রাব আটকে না রাখতে। তবে কিছুক্ষণ প্রস্রাব আটকে রাখলে যদি বেঁচে যায় অন্যের জীবন তাহলে কিছু সময় প্রস্রাব আটকে রাখলে ক্ষতি কী ?