প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:বাসর ঘরে স্বামীকে অচেতন করে টাকা-স্বর্ণালঙ্কার ও শাশুড়ির মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে গেছে উমাইয়া আক্তার লিথি নামে এক নববধু।চাঞ্চল্যকর ও আলোচিত ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহ শহরের ব্যাপারীপাড়ার কেসি কলেজের সামনের পাড়ায়।

 

 

লিথি চুয়াডাঙ্গা জেলা শহরের মসজিদপাড়ার গোলাম মোস্তফা লালার মেয়ে। এতো দিন এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি লোকলজ্জার ভয়ে চাপা রাখে নতুন স্বামীর পরিবার। থানায় জিডি করার পর ঘটনাটি জানাজানি হয়ে গেছে।

 

 

জানা গেছে, লিথি ব্যাপারীপাড়ার কেসি কলেজের সামনে ঠিকাদার মাহবুবের বাড়িতে দুলাভাই পল্টনের ভাড়া বাড়িতে থাকতো। গত ২৮ জুন মুসলিম রীতি মেনে সালমান সালাফি নামে এক যুবকের সাথে লিথির বিয়ে হয়। পরিকল্পনা মোতাবেক বাসর রাতে স্বামীকে শরবতের সাথে ঘুমের বড়ি খাইয়ে অচেতন করে ফেলে। এরপর রাত ২টা ৪৫ মিনিটে লিথি ২০ হাজার টাকা, ৫ ভরি সোনার গহনা ও বিয়েতে পাওয়া যাবতীয় দামী পোষাক-শাড়ী ও অন্যান্য জিনিস নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাটি ধরা পড়ে মালিকের বাড়িতে লাগানো সিসিটিভি ক্যামেরায়।

 

 

ভিডিওতে দেখা যায়, লিথি মেহেদি রাঙা হাতে সাজগোজ করে স্বামী পক্ষের দেওয়া একটি সুইটকেস নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে।আরও জানা গেছে, লিথির মা ক্যান্সারে আক্রান্ত হলে ঢাকার মহাখালী হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হতো। সেখান থেকেই চাঁদপুরের যুবক সাগরের সাথে পরিচয় হয়। এলাকাবাসীর ধারণা সাগরের হাত ধরেই লিথি পালিয়ে গেছে।

 

 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান খান বলেন, ছেলেকে পছন্দ হয়নি এজন্য নববধূ গভীর রাতে পালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় ছেলের বাবা বাদী হয়ে থানায় একটি জিডি করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করছি আমরা।