প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:  সাভারের ধামরাইয়ে পারিবারিক কলহের জেরে স্বামীর যৌনাঙ্গ কেটে দিয়েছে স্ত্রী। সোমবার রাতে উপজেলার কংসপট্টি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।স্থানীয় লোকজন জানান, উপজেলার সোমভাগ ইউনিয়নের কংসপট্টি এলাকার মৃত ইদ্রিস আলীর ছেলে ইউসুফ আলী (২৮) প্রায় ৫ বছর আগে একই এলাকার দুলাল মিয়া ওরফে আইচান বেপারির মেয়ে মঞ্জু আক্তার পারভীনকে (২৩) ভালবেসে বিয়ে করেন।

 

 

 

 

ইউসুফ আলী পেশায় একজন ভ্যানচালক আর তার স্ত্রী স্থানীয় একটি গার্মেন্টসে কাজ করেন। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো। গতকাল দুই জনেই কাজ শেষে বাড়িতে ফিরে আসছিল। পথিমধ্যে ইউসুফ স্ত্রীর মোবাইল হাতে নিয়ে বাড়ির পাশের একটি দোকানে গিয়ে আড্ডায় মেতে উঠে। এসময় পারভিন তার বাবার বাড়ি চলে যায়।

 

 

 

 

আড্ডা শেষে ইউসুফ বাড়িতে আসে এবং স্ত্রীকে দেখতে না পেয়ে মোবাইলে বিভিন্ন জায়গায় ফোন করে। রাতে পারভীন ফিরে আসলে বিষয়টি নিয়ে দুইজনের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতি হয়। হাতাহাতির একপর্যায়ে পারভীন ছুরি নিয়ে ইউসুফের গোপনাঙ্গ কেটে ফেলার চেষ্টা করে।

 

 

 

 

 

এতে ইউসুফের যৌনাঙ্গের এক তৃতীয়াংশ কেটে যায়। তার আর্তচিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে পারভীন পালিয়ে যায়। পরে ইউসুফকে প্রথমে ধামরাই সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে সাভারের এনাম মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে তাকে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

এ বিষয়ে ইউসুফ বলেন, ওর (পারভীনের) মোবাইলে ২০ টাকা ব্যালেন্স ছিল। কথা বলে ব্যালেন্স শেষ করেছি। এটাই আমার অপরাধ! আমি এই অন্যায়ের বিচার চাই। ওর সঙ্গে আর সংসার করবো না।তার যৌনাঙ্গে ৬টি সেলাই পড়েছে বলে জানান তিনি।ইউসুফের মা বলেন, পারভীন আমার ছেলেকে মেরে ফেলতে চেয়েছিল। তাকে আর এই সংসারে রাখবো না। আমরা তার বিরুদ্ধে মামলা করবো।