প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার মধ্য করপাড়া গ্রামে বৃদ্ধ বাবা-মাকে সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদ এবং বসতঘর দখলে নিতে ভাড়াটিয়া লোক দিয়ে পাহারা বসিয়ে বসতঘরে তালা ঝুলিয়ে দেওয়ার মত গুরুতোর অভিযোগ উঠেছে ছেলে ও পুত্রবধূর বিরুদ্ধে। এমন ঘটনা শুনে আশ্চর্য মনে হলেও ঘটনাটি সত্য।

 

 

সমাজবিজ্ঞানীদের ভাষ্য মতে, কোন সমাজে অপরাধের মাত্রা যখন বেড়ে যায়, তখন সেটা শুরু হয় পরিবারের মাঝে প্রয়োগের মধ্য দিয়ে। এমন ঘটনাই ঘটিয়েছেন লক্ষীপুর জেলার বৃদ্ধা বাবা-মায়ের সাথে বড় সন্তান ছালেহ আহমেদ ও তার স্ত্রী। ঘরের দখল বুঝে নিতে বাবা-মায়ের বিরুদ্ধে ছেলে সালেহ আহম্মেদ বাবুল স্থানীয় ইউপি কার্যালয়ে অভিযোগ করেছেন! বসতঘরে তালা দেওয়ায় বৃদ্ধ বাবা-মা ৬ দিন ধরে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। এ বিষয়ে কোন ভ্রুক্ষেপ করছে না সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তি থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ।

 

 

জানা গেছে, উপজেলার মধ্য করপাড়া গ্রামের কুমুর ডাক্তার বাড়ির ৮৩ শতাংশ সম্পত্তি কিনে একটি পাকা ভবন নির্মাণ করে সন্তানদের নিয়ে ৪৮ বছর ধরে বাস করে আসছেন বৃদ্ধ মুনছুর আহমেদ (৮৫) এবং বৃদ্ধা দুলালী বেগম (৭০)। এ দম্পত্তির রয়েছে ৬ মেয়ে ও তিন ছেলে।

 

 

চলতি মাসের ২০ জুলাই বহু আদরের বড় সন্তান সালেহ আহমেদ বাবুল এবং ছেলে বউ কামরুন নেছা রুমী কয়েকজন ভাড়াটিয়া লোক এনে উক্ত বসতঘরের ৩টি কক্ষ ও বাথরুমে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে ৭ দিনের মধ্যে বসতঘর ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেন বৃদ্ধ বাবা-মাকে। অসহায় বৃদ্ধ বাবা-মা দিক-বেদিক হয়ে পথে বসেছেন বলে জানা যায়।

 

 

বৃদ্ধা মা দুলালী বেগম বলেন, বর্তমানে আমরা স্বামী-স্ত্রী ছাড়া বসতঘরে কেউ থাকে না। বয়সের কারণে বসতঘরের বাইরে গিয়ে বাথরুম এবং গোসল করা সম্ভব হচ্ছে না। কি যে করবো কিছু বুঝে উঠতে পাচ্ছি না। আমার বড় ছেলে তার স্ত্রীর নির্দেশে বসতঘরে আমাদের থাকার রুমসহ বাথরুমে রুমে তালা লাগিয়ে দিয়েছে।

 

 

গ্রাম্য শালিসদার এটিএম নুরুজ্জামান মাস্টার বলেন, বৃদ্ধ মুনছুর আহমেদের বড় ছেলে সালেহ আহমেদ বাবুল ক্রয় সূত্রে উক্ত বসতঘরের মালিক হওয়ায় বাবুলের স্ত্রী ও সন্তানদের নামে রেজিস্ট্রি করে দেয়। বর্তমানে উক্ত বসতঘরে দুই বয়স্ক মানুষ ছাড়া অন্য কেউ বসবাস করেন না। ওই বসতঘরসহ সম্পত্তি ছেলের স্ত্রী ও সন্তানরা দখলে নিতে করপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আদালতে একটি আবেদন করেন।

 

 

ইউনিয়ন পরিষদ আদালত কাগজপত্র দেখে বসতঘরের দখল ছেড়ে দিতে আদেশ প্রদান করে।বৃদ্ধ মুনছুর আহম্মেদ বলেন, ইউপি আদালতের আদেশ পেয়ে এলাকার কিছু লোকজনকে জড়ো করে বসতঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে একটি রুমে রেখে তালা ঝুলিয়ে দেয়। ৭দিন সময় দিয়ে আমাদেরকে অন্য ছেলেমেয়েদের সাথে থাকার জন্য বলে আমার বড় ছেলে ও তার স্ত্রী। আমি এখন কি করবো বাবা?

 

 

অভিযুক্ত সন্তান সালেহ আহমেদ বাবুল বলেন, আমার টাকায় কেনা সাড়ে ৪২ শতাংশ সম্পত্তি আমার বাবা-মা বুঝিয়ে না দেয়ায় করপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ আদালতে আবেদন করি। রায় পেয়ে উক্ত সম্পত্তির দখল বুঝে নিতে কয়েকটি রুমে তালা লাগিয়ে দিয়েছি। তাদেরকে ঘর ছেড়ে বের হয়ে যেতে বলিনি।

 

 

এ বিষয়ে মোহাম্মদিয়া বাজার পুলিশ ফাঁড়ির এস আই এমদাদুল হক এমদাদ বলেন, পিতা-মাতার বসতঘরে তালা মারার ঘটনায় ২৪ জুলাই সন্ধ্যায় শুনেছি। তদন্ত করে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থায় নেওয়া হবে। অত্যন্ত হৃদয় বিদারক ঘটনা বলছেন তিনি।

এই বিভাগের আরো খবর :

বানর চালাচ্ছে বাস, স্তম্ভিত যাত্রীরা
সাঁতার কাটতে কাটতে!(ভিডিও)
ওষুধ তৈরির বনজ ছত্রাকের দাম কোটি টাকা ছাড়িয়ে !
চলে গেল বিশ্বের পেশিবহুল ক্যাঙারু রজার
কার্ডবোর্ডের বাক্সে বন্দি দুই ভালুক! (ভিডিও)
ডিমের ভিতর ডিম!
পার্টি মাতানো ঢাকার ডিজে পার্টির দুনিয়া কেমন ? জেনে নিন কিছু অবাক করা তথ্য
চীনে ইংরেজি 'এন' অক্ষর নিষিদ্ধ করার নেপথ্যে
১২ বছরে পতিতাবৃত্তির অন্ধকারে হারিয়ে গিয়েছিলেন! আজ তিনি শিক্ষিকা
নিজে দাঁড়িয়ে থেকে স্ত্রীকে বিয়ে দিলেন স্বামী
মশা মারতে চীনে সর্বাধুনিক সামরিক রাডার প্রযুক্তি ব্যবহার
আবর্জনা দিয়ে তৈরি হয়ে গেল আস্ত বিদ্যালয়
স্বামীর অনুমতিতেই পরকীয়া করি!
বাচ্চাদের স্কুলে পাঠাতে পাহাড় কেটে পথ বানাচ্ছেন বাবা