প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:     ভারত সরকার কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার পর চরম বিপাকে পড়েছে পাকিস্তান। তাঁদের ভয় আর পাগলামো এখন পরিস্কার দেখা যাচ্ছে। সেই ভয় আর পাগলামোর জন্য পাকিস্তান সমঝোতা এক্সপ্রেসকে ওয়াঘা সীমান্তেই ছেড়ে দেয়।

 

 

 

 

 

এরপর তাঁরা থার এক্সপ্রেসকেও নিষিদ্ধ ঘোষণা করে, এবং ভারত আর পাকিস্তানের মধ্যে চলা বাস সার্ভিসও বন্ধ করে দেয়। আরেকদিকে পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের মেয়ে মরিয়মকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। আর এরপর থেকেই ইমরান খানকে নিজের দেশের বিরোধিতার সন্মুখিন হতে হচ্ছে।

 

 

 

 

 

ইমরান খান জম্মু কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের রণনীতি তৈরি করার জন্য ৬ আগস্ট পাকিস্তানের সংসদে সংযুক্ত অধিবেশন ডেকেছিলেন। যখন পাকিস্তানের সংসদে কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল, তখন তাঁদের হাবভাবে ভারতের প্রতি ভয় স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল।

 

 

 

 

আরেকদিকে ইমরান সরকার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের মেয়ে মরিয়মকে গ্রেফতার করে চরম বিপাকে পড়েছে। শোনা যাচ্ছে যে, পাকিস্তানিরা এখন বলছে, কাশ্মীর থেকে নজর হটানোর জন্য আর নিজের ভয় এবং ব্যার্থতা লোকানর জন্য ইমরান খান মরিয়মকে গ্রেফতার করে সবার নজর হটাতে চাইছে।

 

 

 

 

 

 

মরিয়ম নওয়াজের গ্রেফতারির পর জনতা রাস্তায় নেমে ক্ষোভ দেখাচ্ছে। পাকিস্তানের মহিলারা বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন। পাকিস্তানের রাস্তায় এখন একটাই স্লোগান ‘মোদী সে তু ডরতা হেয়, মরিয়ম সে তু লড়তা হেয়”। এছাড়াও পাকিস্তানের জনতা নিয়াজি গো ব্যাক এর স্লোগানও তুলছেন।

 

 

 

 

 

কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর পাকিস্তানের কয়েকজন নেতা মন্ত্রী ভারতকে যুদ্ধের ভয় দেখিয়েছিল। এমনকি খোদ পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতে আরেকটি পুলওয়ামা হামলা করানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছিল।

 

 

 

 

 

 

 

 

কিন্তু এবার এই পাকিস্তানই ভারতকে ভয় পেয়ে যুদ্ধে যাবেনা বলে পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছে। পাকিস্তানের এই মন্তব্যের পর স্পষ্ট যে, তাঁরা সেই রাস্তার কুকুরের মতই! ভৌ ভৌ করে, কিন্তু কামর দেয়না।