প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:   শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হূমায়ুন বলেছেন, সারাদেশে ১০ হাজারের মতো কোরবানি পশুর চামড়া নষ্ট হয়ে থাকতে পারে। যা নগণ্য ব্যাপার।চামড়া নিয়ে বিদ্যমান সংকট সমাধান বিষয়ে রোববার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন শিল্পমন্ত্রী।

 

 

 

 

শিল্পমন্ত্রী হুমায়ুন বলেন, আমরা হিসাব করে দেখলাম, প্রতি বছর ৫ হাজার চামড়া নষ্ট হয়, সব সময় এটা হয়ে থাকে।তিনি বলেন, দেশের এ আবহাওয়ায় জেলা ওয়ারী হিসাবে ব্যবসায়ীরা দায়িত্ব নিয়ে বলেছেন, ১০ হাজার চামড়া নষ্ট হতে পারে।চট্টগ্রামে ৩০ ট্রাক কোরবানির পশুর চামড়া ফেলা দেওয়া হয়েছে— সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী বলেন, বিএনপি কিনে ফেলাইয়া দিছে, এ মুহূর্তে আমার আর বলার কিছু নেই।

 

 

 

 

 

তিনি বলেন, চামড়া শিল্পের অগ্রযাত্রা সীমিত করার জন্য আমার মনে হয় একটি চক্র কাজ করছে।চামড়া রপ্তানির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা অবস্থা বুঝে, ব্যবস্থা নেওয়া হবে।চামড়া শিল্পে আপাতত সমস্যা নেই বলেও মন্তব্য করেন শিল্পমন্ত্রী।ট্যানারির মালিকেরা চামড়া কেনা শুরু করেছেন উল্লেখ করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, চামড়ার দেনা-পাওনা বিষয়ে আগামী ২২ আগস্ট এফবিসিসিআইয়ের উদ্যোগে সভা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

 

 

 

আড়তদাররা তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে রোববার থেকেই ট্যানারিগুলোতে কাঁচা চামড়া বিক্রি করতে রাজি হয়েছেন বলে জানান তিনি।হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত, আজ থেকেই চামড়া বিক্রি শুরু করা হবে।

 

 

 

 

 

 

ট্যানারি মালিকদের কাছে বকেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মাননীয় মন্ত্রী ও উপদেষ্টা মহোদয় এফবিসিসিআইকে দায়িত্ব দিয়েছেন। আগামী ২২ আগস্ট এফবিসিসিআইয়ের উদ্যোগে এ নিয়ে আলোচনা হবে দুই পক্ষের মধ্যে। সেখান থেকেই ফয়সালা করে দেবে।বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, বাণিজ্যসচিব মফিজুল ইসলামসহ ট্যানারি ও আড়তদার নেতারা উপস্থিত ছিলেন।